বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম বাঁধ উদ্বোধন করলো ভারত

গুজরাটে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম বাঁধ সর্দার সারোবর ড্যামের উদ্বোধন করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের প্রায় ছয় দশক পর রোববার বাঁধটি উদ্বোধন করা হয়। কাকতালীয়ভাবে দিনটি ছিল মোদির ৬৭তম জন্মদিন।

উদ্বোধন শেষে গুজরাটের আহমেদাবাদ শহর থেকে ঘণ্টাখানেকের পথ দাভোইয়ে একটি জনসভায় বক্তব্য রাখেন মোদি।

তিনি বলেন, ‘গত ছয় দশক ধরে সর্দার সরোবর বাঁধ নিয়ে দেশজুড়ে বিতর্ক ও আন্দোলনের ঝড় বয়ে গিয়েছে। কিন্তু সেই সব বাধাকে টপকে আজ সাফল্যের মুখ দেখেছে এই প্রকল্প।’ অনেক ষড়যন্ত্র হয়েছে এই প্রকল্পটিকে আটকানোর জন্য। তা সত্ত্বেও এই প্রকল্পকে এগিয়ে নিয়ে যেতে তার সরকার যে বদ্ধপরিকর ছিল সেটাও জানান মোদি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী জানান, শুধু দেশের ভেতরেই যে বাধার মুখে পড়তে হয়েছে এমনটা নয়, বিশ্ব ব্যাংবও মুখ ফিরিয়ে নিয়েছিল। প্রকল্পটির জন্য তহবিল দিতে তারা অস্বীকার করে। কিন্তু ভারত দৃঢ়প্রতিজ্ঞ ছিল বিশ্ব ব্যাঙ্ক সহযোগিতা করুক বা না করুক, এই প্রকল্পকে সফল করবেই।

১৯৬১ সালে বাঁধের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু। ১৯৮৭ সালে এর নির্মাণ কাজ শুরু হয়। তবে নির্মাণের শুরুতেই বাঁধটিকে নিয়ে বিতর্ক দানা বাঁধে। পরিবেশগত কারণ এবং পুনর্বাসনের প্রশ্ন তুলে সমাজকর্মী ও পরিবেশবিদরা আন্দোলনে নামেন। তৈরি হয় নর্মদা বাঁচাও কমিটি। ১৯৯৬ সালে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট বাঁধ নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দেয়। শর্তসাপেক্ষে ঠিক চার বছর পর অর্থাৎ ২০০০ সালে আদালত ফের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরুর অনুমতি দেয়। বাঁধটির উচ্চতা ১৩৮ দশমিক ৬৮ মিটার। এর দৈর্ঘ্য ১ দশমিক ২ কিলোমিটার এবং জলধারণ ক্ষমতা ৪৭ লাখ ৩০ হাজার একর ফুট।

দৈর্ঘ্য বিবেচনায় সর্দার সারোবর বাঁধের আগে আছে যুক্তরাষ্ট্রের গ্র্যান্ড কোলি ড্যাম। ১৬৩ মিটার গভীর সর্দার সারোভার বাঁধ দিনে দুটি পাওয়ার হাউজ থেকে ৪ হাজার ১৪১ কোটি ইউনিট বিদ্যুৎ উৎপাদনে সক্ষম। উৎপাদিত বিদ্যুৎ মহারাষ্ট্র, মধ্য প্রদেশ ও গুজরাটের মধ্যে বন্টন করে দেওয়া হবে। বাঁধের প্রত্যেক ফটকের ওজন ৪৫০ টনেরও বেশি। এগুলো বন্ধ করতে অন্তত এক ঘণ্টা সময় লাগবে ।

You Might Also Like