নিজের বোলিংয়ে সন্তুষ্ট মাশরাফি

তিন বছর পর আবারও সাদা জার্সি গায়ে মাঠে নেমেছেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। না, আবার টেস্ট ক্রিকেটে ফেরার কোনো ইচ্ছা চেপে বসেনি বাংলাদেশের ওয়ানডে অধিনায়কের। দক্ষিণ আফ্রিকায় ওয়ানডে সিরিজের আগে নিজেকে ম্যাচে রেখে অনুশীলন করাই তার মূল উদ্দেশ্য। সেই সঙ্গে দলকে সাপোর্ট দেওয়া। সেখানে অনেকটাই সফল তিনি।

প্রায় সারাদিনই মাঠে ছিলেন, বোলিং করেছেন ১৩ ওভার। শেষ সেশনের দুই ওভার বাদ দিলে পুরোটাই মাশরাফি ছিলেন ছন্দে। নিজের প্রথম দিনের পারফরম্যান্সে তাই সন্তুষ্ট মাশরাফি। ম্যাচের পরের দিনগুলোতে নিজেকে আরো বেশি উজার করে দেওয়ার কথাও বলেছেন তিনি। শুক্রবার প্রথম দিনের ম্যাচ শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

ম্যাচে তিনি যেটা আশা করেছেন, তেমনটা করতে পেরেছেন বলে মনে করেন মাশরাফি। বলেন, ‘যে উদ্দেশ্যে এই ম্যাচ খেলা, তা অনেকটাই সফল। ১৩ ওভার বল করেছি, অনেক গরম ছিল, এর মধ্যেও ৮০ ওভারের মতো মাঠে ফিল্ডিং করেছি, এটা এডভানটেজ হয়েছে আমার জন্য। ওয়ানডেতে যেগুলো খরুচে হয়, শুরুতে আমার নো বল হয়েছে, পরে সেগুলো কাভার করতে পেরেছি। সব মিলিয়ে ভালোই হয়েছে। আরো বোলিংয়ের সুযোগ আছে, আশা করি ভালোই হবে।’

অনেক দিন লংগার ভার্সন ক্রিকেট খেলা হয় না, তাই একদিনে ১৩ ওভার বোলিংও অনেক দিনই করেন না। আজ করেছেন, নিজেকে কতটা ঠিক মনে হচ্ছে জানতে চাইলে মাশরাফি বলেন, ‘শেষ স্পেলটাতে একটু ক্লান্তি ছিল, অনেক দিন অভ্যাস নেই। ৮০ ওভার ফিল্ডিং করার পরে একটু ক্লান্তি থাকতেই পারে। তবে এরপরে যখন বোলিং করব, হয়তো সেটা ঠিক হয়ে যাবে। প্রথম স্পেল বা দ্বিতীয় স্পেলে আমার কোনো সমস্যা হয়নি, রিদম ঠিক ছিল। অনেক দিন ম্যাচ না খেলায়, কিছু টেকনিক্যাল সমস্যা থেকেই যায়, এগুলো ম্যাচ খেললে ঠিক হয়ে যাবে।’
তিন বছর পর সাদা পোশাকে নামলেও আগাগোড়া পেশাদার ভঙ্গিতে দেখছেন বিষয়টিকে। বলেন, ‘কোনো আলাদা অনুভূতি আসলে জাগছে না, আমি একটা উদ্দেশ্য নিয়ে এ ম্যাচ খেলছি, সেটাতেই আমি ফোকাস রাখছি, একই সাথে টিমকে যতটা সাপোর্ট দেওয়া যায়। নিজের ম্যাচে থাকার জন্য অনুশীলনটাও ঠিকভাবে হওয়া। শেষ তিন মাসে আমাদের কোনো ওয়ানডে ম্যাচ ছিল না, কোনো ঘরোয়া ওয়ানডে ম্যাচও ছিল না। সুতরাং, এটা আমার জন্য আসলে খুব ভালো একটা সুযোগ, এখানে খেলতে পারাটা।’

জাতীয় ক্রিকেট লিগে খুলনা সব সময়ই সেরা টিম, এবার মাশরাফিকে পেয়ে আরো উজ্জীবিত। তাদের সামনে হ্যাটট্রিক শিরোপার হাতছানি। এবারও কি খুলনা শিরোপা ধরে রাখতে পারবে, তিনিই বা কী অবদান রাখতে পারবেন? উত্তরে আশাবাদী মাশরাফি বলেন, ‘আমাদের খুলনা জাতীয় লিগে সব সময়ই ভালো খেলে, দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের জন্য এবার দুয়েকজন খেলোয়াড় হয়তো টিমের সাথে থাকছে না, তবে খুলনার জন্য এটা কোনো সমস্যা না। গত মৌসুমেও খুলনার টিম এমনই ছিল, আমাদের ব্যাকআপ প্লেয়ারও খুব ভালো। আশা করি, এবারও খুলনা ভালো করবে। প্রথম ম্যাচে সেট হতে সময় লাগে। যদি প্রথম ম্যাচটা ভালোভাবে শেষ করতে পারি, তাহলে দ্বিতীয় ম্যাচ থেকে আবারও শিরোপার রেসে থাকতে পারব।’

উইকেট নিয়ে মাশরাফির অভিযোগ না থাকলেও বলেন, ‘উইকেট ফ্ল্যাট, আমাদের ৮ জন বোলারকে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে বল করাতে হয়েছে। কয়েকজন অপশনাল বোলার, এইখানে কিছুটা পিছিয়ে আছি। তবে আগেও বলেছি, প্রথম ম্যাচে সেট হতে একটু সময় লাগে; দ্বিতীয় ম্যাচ থেকে সেটা ঠিক হয়ে যাবে। একই সাথে এই ম্যাচেও ভালোভাবে ফিরে আসার সুযোগ আছে আমাদের।’

মাশরাফি লিগে কয়টি ম্যাচ খেলবেন, সেটি এখনো চূড়ান্ত করেননি। জানান, প্রথম ম্যাচের ওপরই নির্ভর করছে বিষয়টা।

You Might Also Like