নেইমারের বাইআউট-ক্লজের অর্থ নেয়নি লা লিগা

ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য নেইমার দ্য সিলভা এখন পর্তুগালে। সেখান থেকে ডাক্তারি পরীক্ষা শেষে ফ্রান্সে যাওয়ার কথা তার। ব্রাজিলিয়ান তারকাকে গ্রহণ করতে মুখিয়ে আছে প্যারিস। শুক্রবার নেইমারের সঙ্গে আনুষ্ঠানিক চুক্তি করার কথা রয়েছে ফ্রেঞ্চ লিগ ওয়ানের ক্লাব প্যারিস সেইন্ট জার্মেইর।

কিন্তু, আজ নেইমারের আইনজীবি হুয়ান ডি দিওস ক্রেসপো (ক্রীড়া আইনে বিশেষজ্ঞ ও বহু আলোচিত ক্রীড়া মামলায় বিজয়ী) লা লিগা কর্তৃপক্ষের কাছে বাই-আউট-ক্লজের ২২২ মিলিয়ন ইউরোর চেক জমা দিতে আসেন। কিন্তু লা লিগা কর্তৃপক্ষ সেটা গ্রহণ করেনি। সেটা প্রত্যাখ্যাত হয়েছে। লা লিগা কর্তৃপক্ষ মনে করছে, পিএসজি উয়েফার ফাইনান্সিয়াল ফেয়ার প্লে- এর নিয়ম ভঙ্গ করছে।

বাই-আউট-ক্লজের টাকা ফিরিয়ে দেওয়ার বিষয়ে লা লিগা কর্তৃপক্ষ জানায়, আজ নেইমারের আইনজীবি বাই-আউট-ক্লজের টাকা জমা দিতে আসেন আমাদের কাছে। কিন্তু আমরা সেটা ফিরিয়ে দিয়েছি। পাশাপাশি আমরা উয়েফাকে অনুরোধ করেছি বিষয়টি খতিয়ে দেখতে যে তারা ফাইনান্সিয়াল ফেয়ার প্লে- এর নিয়ম ভঙ্গ করেছে কিনা।’

ফিফার ফাইনান্সিয়াল ফেয়ার প্লে-এর নিয়ম অনুযায়ী কোনো ক্লাব খেলোয়াড় কেনার ক্ষেত্রে তাদের মোট আয়ের চেয়ে ৩০ মিলিয়ন ইউরোর বেশি খরচ করতে পারে না। এক্ষেত্রে পিএসজি যদি নিয়ম ভঙ্গ করে তাহলে নানারকম শাস্তি হতে পারে ফরাসি ক্লাবটির। তবে ফিফার কাছে অস্থায়ী দল বদলের জন্য আবেদন করে নেইমারকে দিয়ে খেলাতে পারবে ফরাসি ক্লাবটি। শেষ পর্যন্ত পিএসজি যদি দোষী সাব্যস্তও হয় তাহলে ক্লাবের শাস্তি হবে, নেইমারের নয়।

নেইমারকে দলে ভেড়াতে পিএসজির কাতারের মালিক জাভিয়ের তেবাস ভর্তূকি দিয়েছেন। এই ভর্তূকি দেওয়ার ক্ষেত্রেও উয়েফার নিয়ম রয়েছে। সেগুলো ভঙ্গ করেছে কিনা পিএসজি সেটাও খতিয়ে দেখবে উয়েফা।

এ বিষয়ে উয়েফার প্রধান অর্থনৈতিক পরিচালক আন্দ্রেয়া ত্রাভার্সো বলেন, ‘অন্যান্য ইউরোপিয়ান ক্লাবের মতো পিএসজিকেও ফাইনান্সিয়াল ফেয়ার প্লে- এর প্রতি সম্মান দেখাতে হবে। যদিও এ বিষয়ে আমরা এখনো আনুষ্ঠানিক কোনো অভিযোগ পাইনি। পেলে সেটা আমরা খতিয়ে দেখব। যদিও অভিযোগ না পেলেও এই বিষয়গুলো আমরা খতিয়ে দেখি। ক্লাবের আয়-ব্যয়, ক্ষতি ও ঋণের বিষয়গুলো খতিয়ে দেখি।’

তাদের তদন্তে যদি পিএসজি দোষী সাব্যস্ত হয় তাহলে কী ধরণের শাস্তি হতে পারে পিএসজির? এ বিষয়ে আন্দ্রেয়া ত্রাভার্সো বলেন, ‘তদন্তের আগে কী ধরণের শাস্তি হতে পারে সেটা নিয়ে মন্তব্য করা ঠিক হবে না। পিএসজিকে প্রমাণ করতে হবে যে তারা তাদের আয়ের চেয়ে বেশি খেলোয়াড় কেনার ক্ষেত্রে খরচ করছে না। পাশাপাশি তাদের প্রমাণ করতে হবে যে গেল তিন বছরে তারা ৩০ মিলিয়ন ইউরোর বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হয়নি। তারা যে পরিমাণ টাকা দিয়ে নেইমারকে দলে ভেড়াচ্ছে সেটি ক্লাবের অর্থনীতিতে প্রভাব ফেলবে। তবে উচ্চ মূল্যে তারা কিছু খেলোয়াড় বিক্রি করে এই সমস্যা থেকে মুক্তিও পেতে পারে। এ ছাড়াও তাদের হাতে বেশ কিছু বিকল্প থাকতে পারে। আমরা হয়তো জানি না যে ফরাসি ক্লাবটি কোন পরিকল্পনা নিয়ে আগাচ্ছে। চুক্তি হয়ে যাওয়ার পর আমরা কেবল বিষয়টি খতিয়ে দেখতে পারব। তারা যদি নিয়ম ভঙ্গ করে থাকে তাহলে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নিবে উয়েফা।’

You Might Also Like