সাদ্দামের ঘটনা থেকে শিক্ষা নিন: কুয়েতকে ইরান

ইরানের বিশিষ্ট আলেম ও স্পষ্টভাষী নেতা আয়াতুল্লাহ সাইয়্যেদ আহমাদ খাতামি বলেছেন, ইসলামী এই রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে কুয়েতের সাম্প্রতিক পদক্ষেপ মার্কিন ও ইহুদিবাদী লবির চাপের ফল।

কুয়েত সরকার গতকাল (বৃহস্পতিবার) সেদেশে ইরানের সাংস্কৃতিক কেন্দ্র বন্ধ ও ইরানি দূতাবাসের কূটনীতিকের সংখ্যা হ্রাসের যে পদক্ষেপ নিয়েছে সে বিষয়ে প্রতিক্রিয়া দেখাতে গিয়ে আয়াতুল্লাহ খাতামি আজ তেহরানের জুমা নামাজের খোতবায় এই মন্তব্য করেছেন।

তিনি বলেছেন, এটা স্পষ্ট মার্কিন ও ইহুদিবাদী লবি ইরান-বিরোধী এই পদক্ষেপের নেপথ্যে রয়েছে যাতে ইসলামী এই রাষ্ট্রের সঙ্গে প্রতিবেশী দেশগুলোর সম্পর্কের অবনতি ঘটে।

আয়াতুল্লাহ খাতামি ইসলামী ইরানকে এ অঞ্চলের সবচেয়ে শক্তিশালী দেশ হিসেবে উল্লেখ করে বলেছেন, আঞ্চলিক ও প্রতিবেশী দেশগুলো ইরানের সঙ্গে সুসম্পর্ক রাখলে তাতে তারাই লাভবান হবে।

তিনি ইরানের সঙ্গে তার প্রতিবেশী দেশগুলোর কূটনৈতিক সম্পর্ক ও মার্কিন সরকারের সঙ্গে তাদের রাজনৈতিক সম্পর্কের পার্থক্য তুলে ধরে বলেছেন, মার্কিন সরকার এই সম্পর্ককে হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার শেষে এ জাতীয় দেশগুলোর সঙ্গে ঠিক সেই আচরণই করবে যেমনটি তারা করেছিল ইরাকের পতিত ও নির্মূল-হয়ে যাওয়া স্বৈরশাসক সাদ্দামের সঙ্গে।

আয়াতুল্লাহ খাতামি প্যারিসে ইরান বিরোধী সন্ত্রাসী-মুনাফিক গোষ্ঠী এমকেও-কে সম্মেলন করতে দেয়ায় ফরাসি সরকারের কঠোর নিন্দা জানিয়ে বলেছেন, এই সমাবেশের অনুমতি দিয়ে ফ্রান্স সরকার কেবল কথায় নয় কাজেও সন্ত্রাসবাদের প্রতি সহায়তা দিল।

তেহরানের জুমা নামাজের অস্থায়ী খতিব তাকফিরি-ওয়াহাবি সন্ত্রাসী গোষ্ঠী দায়েশ তথা (আইএস) আইএসআইএল-কে ইরানে ৮০’র দশকে সক্রিয় নৃশংস মুনাফিক গোষ্ঠীরই নতুন সংস্করণ হিসেবে অভিহিত করে বলেছেন, অচল ও বিলুপ্ত হয়ে পড়া সন্ত্রাসী মুনাফিক গোষ্ঠী এমকেও-কে ব্যবহার করে প্যারিস সরকার এই গোষ্ঠীর সন্ত্রাসী তৎপরতাকেই স্বীকৃতি দিল।

You Might Also Like