২০ রমজানের মধ্যে বেতন-ভাতা পরিশোধের দাবি

ঈদ আসলেই বেতন বোনাস প্রদান নিয়ে গার্মেন্টস মালিকরা টালবাহানা করে। এতে কারখানায় শ্রমিক অসন্তোষ দেখা দিলে পুলিশ দিয়ে মাস্তান দিয়ে হুমকি প্রদান ও হয়রানি করা হয় বলে অভিযোগ করেছে জাগো বাংলাদেশ গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন। মঙ্গলবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে এ অভিযোগ করা হয়। তারা  ২০ রমজানের মধ্যে শ্রমিকদের জুলাই মাসের বেতনসহ বকেয়া বেতন-ভাতা পরিশোধের দাবি জানিয়েছেন। এসময় সংগঠনটি সি.টি.এল গার্মেন্টসহ বন্ধ পোশাক কারখানা খুলে দেওয়া, শ্রমিক ও শিল্প রক্ষায় তাজরীন গার্মেন্টসের এম.ডি দেলোয়ারের জামিন দাবি করেন।

সংগঠনটির সভাপতি মো. বাহারানে সুলতান বাহার বলেন, শ্রমিকদের ভুখা রেখে এই শিল্পের সফল উৎপাদন সম্ভব না। তাই শ্রমিকদের বেতন ২০ রমজানের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে। অনতিবিলম্বে বন্ধ কারখানা চালু করে কাজের পরিবেশ তৈরি করতে হবে। বিনা নোটিশে শ্রমিকদের ছাঁটাই ও চাকরিচ্যুত করা যাবে না।

তিনি বলেন, সরকার গার্মেন্টস সেক্টরের শ্রমের পরিবেশ সৃষ্টির চেষ্টা করছে। অন্যদিকে গার্মেন্টস মালিকরা কারখানা বন্ধ করে দিয়ে শ্রমিকের পেটে লাথি মারছে।

তিনি আরও বলেন, গার্মেন্টস শিল্পে জিএসপি সুবিধা নিয়ে দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্র চলছে। জিএসপি সুবিধা পুনরায় বহালের সকল পথ সহজ করতে হবে। তাজরীন ফ্যাশনের এম.ডি জেলে থাকার কারণে শ্রমিকরা ৩ মাস যাবৎ বেতন পাচ্ছে না।

তাই দেলোয়ারকে জামিনের মাধ্যমে শ্রমিকদের বকেয়া বেতন পরিশোধের সুযোগ দেওয়ার জন্য সরকারের কাছে আহ্বান জানান তিনি।

মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ সংযুক্ত শ্রমিক ফেডারেশনের কেন্দ্রীয় নেতা এম আশরাফ সরকার, গার্মেন্টস শ্রমিক নেতা আলমগীর রনি, মাহতাব উদ্দিন শহিদ ও জান্নাত ফাতেমা প্রমুখ।

You Might Also Like