জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ আজ শুরু

মাছচাষে গড়বো দেশ, বদলে দেব বাংলাদেশ -এই প্রতিপাদ্য নিয়ে আজ থেকে শুরু হয়েছে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ। প্রতি বছরের মতো এ বছরও মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৭ উদযাপিত হচ্ছে।

আজ বেলা ১১টায় মৎস্যভবনে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে সপ্তাহের কর্মসূচি ঘোষণা করবেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী মোহাম্মদ ছায়েদুল হক।

এছাড়া আগামীকাল ১৯ জুলাই বাংলাদেশ কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন, কৃষি খামার সড়ক, ফার্মগেট ঢাকায় জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৭’র উদ্বোধন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন এবং সকাল ১১টায় গণভবন লেকে মাছের পোনা অবমুক্ত করবেন।

জাতীয় অর্থনীতিতে মৎস্য খাতের অবদান ও গুরুত্ব অপরিসীম। অথচ দেশীয় জাতের মাছ আজ নানা কারণে বিলুপ্ত হতে চলেছে। তাই সুস্বাদু দেশীয় জাতের মাছের সংরক্ষণও বংশবিস্তারেও গুরুত্ব দিতে হবে। দেশের আপামর জনসাধারণের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় আমিষের চাহিদা পূরণ, কর্মসংস্থান, দারিদ্র্যবিমোচনসহ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে মৎস্যসম্পদ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। মাছের গুরুত্ব উপলব্ধি করে এককালে বাঙালির পরিচয় ছিল ‘মাছে ভাতে বাঙালি’। জনসংখ্যা বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে মাছের চাহিদাও বাড়ছে। মাছের আন্তর্জাতিক বাজারও সম্প্রসারিত হচ্ছে। মৎস্যসম্পদের যথাযথ সংরক্ষণ ও স্বাস্থ্যসম্মত সরবরাহ ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে আধুনিক ও পরিকল্পিত উপায়ে মৎস্যচাষ, আহরণ ও পরিচর্যার বিকল্প নেই।

সপ্তাহের তাৎপর্য উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি মো: আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গতকালই পৃথক বাণী দিয়েছেন। বাণীতে দেশের মৎস্য খাতের সার্বিক উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট সবাইকে নিষ্ঠার সাথে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি বাণীতে বলেন,‘সরকার বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে একটি মধ্য-আয়ের দেশে উন্নীত করার লক্ষ্যে মৎস্যসম্পদ উন্নয়নসহ জনহিতকর বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে। এ লক্ষ্য অর্জনে অপার সম্ভাবনাময় মৎস্যখাত গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে ।’

প্রদত্ত বাণীতে শেখ হাসিনা বলেন,‘মৎস্যখাতকে সরকারের অন্যতম অগ্রাধিকারভুক্ত খাত হিসেবে অভিহিত করে শেখ হাসিনা বলেন, দেশের বিপুল জনগোষ্ঠীর পুষ্টি চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে বিগত সাড়ে আট বছরে আওয়ামী লীগ সরকার এখাতে পরিকল্পিত উন্নয়ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করেছে। এর ফলে জাতীয় অর্থনীতিতে মৎস্যখাতের ভূমিকা বৃদ্ধি পেয়েছে। এখাতে অধিকতর কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।’

You Might Also Like