অপরাধী শনাক্তে সিএমপি পুলিশের ডিজিটাল উদ্যোগ

অপরাধী শনাক্ত, অপরাধ প্রবণতা কমানো, চুরি হওয়া জিনিস সনাক্ত ও উদ্ধার এবং যানজট কমাতে তিনটি ডিজিটাল উদ্যোগ নিয়েছে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ (সিএমপি)।

আর নগরবাসীকে দ্রুততম সময়ের মধ্যে এসব সেবা দিতে মোবাইল অ্যাপস, ভাইকেল থেফট ও রিকোভারি ডাটা বেইস এবং নগরজুড়ে ডিজিটাল সার্ভিল্যান্স ক্যামেরা বসানো হয়েছে।

সোমবার বেলা সাড়ে ১২টায় নগর পুলিশের সভা কক্ষে পুলিশ কমিশনার মো. শফিকুল ইসলাম এসব ডিজিটাল প্রযুক্তির উদ্বোধন করেন।

সভায় উপস্থিত ছিলেন- অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) বনজ কুমার মজুমদার, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন) একেএম শহিদুল রহমানসহ নগর পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

নগর পুলিশ সূত্রে জানা যায়, প্রাথমিকভাবে সিটি গেইট, একে খাঁন মোড়, অলঙ্কার মোড়, জিইসি, মুরাদপুর, দু’নম্বর গেইট, বহদ্দারহাট, অক্সিজেন মোড়, সাগরিকা, সিইপিজেড মোড়, রাহাত্তারপুল, শাহ আমানত সেতু, নিউমার্কেট, কাজির দেউড়ি মোড়সহ ১৭টি স্পর্শকাতর পয়েন্টে ৬৫টি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা বসানো হয়েছে।

এছাড়া অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনাকে গুরুত্ব দিয়ে পুরো নগরীকে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার আওতায় আনার পরিকল্পনা করছে সিএমপি।

একইসঙ্গে মোবাইল অ্যাপসের মাধ্যমে নগরবাসী নিকটতম থানার ঠিকানা ও অবস্থান জানতে পারবেন। সেই সঙ্গে প্রয়োজনে অ্যাপসের মধ্যে থাকা পুলিশের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের ফোন নাম্বারে যোগাযোগ করে সাহায্য নেওয়া যাবে।

পুলিশ কমিশনার শফিকুল ইসলাম জানান, পুরো নগরীতে ক্যামেরা বসাতে আরো তিন থেকে চার মাস সময় লাগবে। এই সেবা প্রকৃত অপরাধী সনাক্তসহ যানজটের ভোগান্তি কমাবে। একইসঙ্গে সিএমপির মোবাইল অ্যাপস ব্যবহারের মাধ্যমে পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহায়তা করার জন্য নগরবাসীর প্রতি অনুরোধ জানান কমিশনার।

নগর পুলিশের উপ-কমিশনার বাবুল আক্তার বলেন, তিন ধরনের ক্যামেরা আমরা স্থাপন করছি। এর মধ্যে আছে পিটিজেড ক্যামেরা যেটা গাড়ির নম্বর সংরক্ষণ করবে। ফেস ডিটেক্টর আছে যেগুলো মিটিং-মিছিল, সমাবেশসহ জনসমাগমের চিত্র নিখুঁতভাবে ধারণ করবে। এছাড়া ১২০০ টিবিএল ক্যামেরা আছে, যেগুলো আশেপাশের সব চিত্র ধারণ করবে।

তিনি আরো বলেন, নগরীতে ৫০টি স্থানে আমরা ক্যামেরা স্থাপন করবো। ক্যামেরায় ধারণ করা দৃশ্য দেখে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়ার জন্য সিএমপিতে কেন্দ্রীয়ভাবে একটি নিয়ন্ত্রণ কক্ষও খোলা হয়েছে।

নগরীর তিনটি গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে লাগানো হয়েছে অত্যাধুনিক পিটিজেড ক্যামেরা। স্পট তিনটি হচ্ছে, সিইপিজেড, শাহ আমানত সেতু এবং বন্দর টোল প্লাজা।

You Might Also Like