বাংলাকে ভাগ করতে দাঙ্গা বাধানোর চেষ্টা করা হচ্ছে: মমতা

বাংলাকে (পশ্চিমবঙ্গ) ভাগ করতে দাঙ্গা বাধানোর চেষ্টা করা হচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ (সোমবার)পূর্ব মেদিনীপুরের নন্দকুমারে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের উদ্বোধনে গিয়ে তিনি ওই মন্তব্য করেন।

মমতা এদিন উত্তর ২৪ পরগণা জেলার বসিরহাটে সাম্প্রতিক গোলযোগের নেপথ্যে বিজেপির মদত রয়েছে বলে বলেন। বিজেপি’র নাম না করে তিনি বলেন, বাইরে থেকে লোক এনে যে রাজ্যে অশান্তি বাধানোর চেষ্টা করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘বাংলা যখন এগোচ্ছে তখন অনেকে চক্রান্ত করা হচ্ছে৷ এটা হিংসার জায়গা নয়৷ হিংসাকে মদত দেওয়া কোনো সরকারের কাজ নয়৷ সন্ত্রাসের চেষ্টা করলে কঠোরভাবে তা মোকাবিলা করব৷ ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবাই একসঙ্গে তা রুখব। হিংসা হচ্ছে দূষণ, শান্তি হচ্ছে শ্রেষ্ঠ সমাধান৷’

মমতা বলেন, ‘কখনো গো-রক্ষা, কখনো হিংসা, এসব আমরা রুখে দেবো। ভারতকে সর্বনাশের হাত থেকে রক্ষা করুন। আমরা মানুষের মধ্যে ভাগাভাগি করতে চাই না।ভাগাভাগি করে দিল্লির সরকার।’

মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্ব হিন্দু পরিষদ বন্দুক চালানোর প্রশিক্ষণ দিচ্ছে৷ কখনও গোরক্ষা, কখনও দাঙ্গা৷ শপথ নিচ্ছি, এসব করতে দেবো না৷ আপনারা ওদের চক্রান্তে পা দেবেন না৷’ তিনি সব ধর্ম-বর্ণের মধ্যে সম্প্রীতি বজায় রাখার আহ্বান জানান৷

মমতা বলেন, ‘দাঙ্গায় মদত দেওয়া সরকারের কাজ নয়। যারা মানুষে মানুষে দাঙ্গা বাধায় তারা নেতা হতে পারেন না। রাজ্যে অশান্তি সৃষ্টির চেষ্টা হলে কঠোর হাতে দমন করা হবে। বাংলা (পশ্চিমবঙ্গ) ভাগাভাগিতে বিশ্বাস করে না।

তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়ে অসহযোগিতা করছে কেন্দ্রীয় সরকার। দার্জিলিংয়ের জন্য পর্যাপ্ত আধাসামরিক বাহিনী সিআরপিএফ চেয়েও রাজ্য তা পায়নি বলে মুখ্যমন্ত্রী কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন।

You Might Also Like