ছয়টি ধারা স্বাধীন মতপ্রকাশে বাধা : টিআইবি

জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালা-২০১৭-তে অন্তর্ভুক্ত ছয়টি ধারা সংশোধন দাবি করেছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।

বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে প্রতিষ্ঠানের নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, এ নীতিমালায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইন, ২০০৬-এর ৫৭(১) উপধারা এবং (৮০) ও (৮৬) ধারা এবং জাতীয় সম্প্রচার নীতিমালা, ২০১৪-এর ৫ (১.৩), ৫ (১.৫) ও ৫ (১.৯) বিতর্কিত ধারাগুলো অন্তর্ভুক্ত হওয়ায় অনলাইন গণমাধ্যমসহ অন্যান্য গণমাধ্যমকেও তা মেনে চলতে হবে, যা গণমাধ্যমের সুষ্ঠু বিকাশের অন্তরায় এবং সংবিধান স্বীকৃত চিন্তা ও বিবেকের স্বাধীনতাপরিপন্থী।

ড. ইফতেখারুজ্জামান আরও বলেন, নীতিমালা অনুযায়ী অনলাইন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানের সম্পাদকীয় নীতিমালা প্রস্তাবিত কমিশন কর্তৃক অনুমোদিত করার যে বাধ্যবাধকতা রাখা হয়েছে, তা গণমাধ্যমের স্বাধীন মতপ্রকাশের সাংবিধানিক অধিকার বাধাগ্রস্ত করতে পারে।

টিআইবির নির্বাহী পরিচালক বলেন, এ নীতিমালায় অনলাইন গণমাধ্যমকে যেভাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে তা স্পষ্ট নয়। বাংলাদেশে নিবন্ধিত সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানকে অনলাইন গণমাধ্যম হিসেবে বিবেচনা করা এবং এর মাধ্যমে এসব সংস্থাকে গণমাধ্যম নীতিমালার আওতাভুক্ত করা অযৌক্তিক।

ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, জাতীয় অনলাইন গণমাধ্যম নীতিমালাটি যুগোপযোগী করতে বিভিন্ন সময়ে সংশ্লিষ্টরা যে মতামত ও সুপারিশ করেছে তা সঠিকভাবে প্রতিফলিত হয়নি। ফলে অনলাইন গণমাধ্যমসহ অন্যান্য গণমাধ্যমের স্বাধীনভাবে মতপ্রকাশ ক্ষেত্রবিশেষে বাধাগ্রস্ত হতে পারে।

ড. ইফতেখারুজ্জামান অবিলম্বে সংশ্লিষ্ট খাতে যোগ্যতাসম্পন্ন, গ্রহণযোগ্য ও দলনিরপেক্ষ ব্যক্তিদের সমন্বয়ে একটি স্বাধীন সম্প্রচার কমিশন গঠনের আহবান জানান। পাশপাশি ভয়ভীতি ও পক্ষপাতহীনভাবে যেন তারা দায়িত্ব পালন করতে পারে তা নিশ্চিত করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

You Might Also Like