এখন ফরহাদ মজহার ডিবি কার্যালয়ে

ফরহাদ মজহারকে ঢাকার মিন্টো রোডে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কার্যালয়ে নেওয়া হয়েছে। উদ্ধারের পর (আজ) মঙ্গলবার সকাল নয়টার কিছু আগে তাঁকে প্রথমে আদাবর থানায় নেওয়া হয়।

ওই সময় আদাবর থানায় যান ফরহাদ মজহারের স্ত্রী ফরিদা আখতার ও স্বজনেরা। সেখান থেকে ফরিদা আখতার জানান, ফরহাদ মজহারকে পরিবারের কাছে দেওয়া হবে বলে পুলিশ তাঁকে জানিয়েছে। পরে তিনি আরও জানান, বেলা ১১টার কিছু আগে ফরহাদ মজহারকে ডিবি কার্যালয়ে নেওয়া হয়। সেখানেও পরিবারের সদস্যরা যাচ্ছেন। আদাবর থানায় স্বামীর সঙ্গে কোনো কথা হয়নি। ফরহাদ মজহার শুধু বলেছেন, ‘আমি খুব ক্লান্ত।’ তাঁকে দেখেও ক্লান্ত মনে হয়েছে।

গত সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে যশোরের অভয়নগরে খুলনা থেকে ঢাকাগামী হানিফ পরিবহনের একটি বাস থেকে উদ্ধার করা হয় ফরহাদ মজহারকে। স্বজনেরা অভিযোগ করেন, গতকাল ভোরে কে বা কারা ফরহাদ মজহারকে রাজধানীর শ্যামলীর হক গার্ডেনের বাসার সামনে থেকে তুলে নিয়ে গেছে।

উদ্ধার করার পর সোমবার দিবাগত রাত ১টা ২০ মিনিটে খুলনার ফুলতলা থানায় সংবাদ সম্মেলনে পুলিশের খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি দিদার আহমেদ জানিয়েছিলেন, ফরহাদ মজহারের ব্যাগে মোবাইল ফোনের চার্জার, শার্টসহ বেড়াতে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় জিনিস পাওয়া গেছে। ব্যাগ দেখে বোঝা যায় যে তিনি স্বেচ্ছায় ভ্রমণে এসেছেন। তিনি সুস্থ আছেন। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে পুলিশের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘অপহরণ নাটক’ সাজানো হয়েছিল বলে মনে হয়।

You Might Also Like