বিরোধপূর্ণ দ্বীপের কাছে মার্কিন রণতরি, ক্ষুব্ধ চীন

দক্ষিণ চীন সাগরে বিরোধপূর্ণ দ্বীপের কাছে যুক্তরাষ্ট্রের রণতরির উপস্থিতিতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে চীন।

এ ঘটনাকে ‘ভয়ংকর রাজনৈতিক ও সামরিক উসকানি’ হিসেবে অভিহিত করেছে চীন।

দক্ষিণ চীন সাগরে প্যারাসেল দ্বীপপুঞ্জের অংশ ট্রাইটন দ্বীপের কাছে অবস্থান নিয়েছে মার্কিন রণতরি ইউএসএস স্টেদেম। এই দ্বীপের মালিকানা নিয়ে চীনের সঙ্গে প্রতিবেশী কিছু দেশের বিরোধ রয়েছে।

ট্রাইটন দ্বীপের কাছে যুক্তরাষ্ট্রের রণতরি অবস্থান নেওয়ার প্রতিক্রিয়ায় ওই এলাকায় সামরিক জাহাজ ও যুদ্ধবিমান পাঠিয়েছে চীন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের মধ্যে ফোনালাপের কয়েক ঘণ্টা আগে এ ঘটনা ঘটে।

উল্লেখ্য, স্থানীয় সময় রোববার শি জিনপিংয়ের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। উত্তর কোরিয়ার পরমাণু হামলার হুমকি মোকাবিলা, কোরীয় উপদ্বীপে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখা এবং বাণিজ্যে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে ভারসাম্য রক্ষা নিয়ে কথা হয় দুই নেতার মধ্যে।

চীনের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে প্রচারিত খবরে বলা হয়েছে, শি জিনপিং ফোনালাপে ট্রাম্পকে বলেছেন, ‘নেতিবাচক ঘটনাগুলো’ চীন ও যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কে প্রভাব ফেলছে। ফোনালাপের বিষয়ে হোয়াইট হাউসের বিবৃতিতে দক্ষিণ চীন সাগরে মার্কিন রণতরি ও চীনের উদ্বেগ নিয়ে দুই নেতার মধ্যে আলোচনা হয়েছে কিনা, তা বলা হয়নি। তবে কোরীয় উপদ্বীপকে ‘পরমাণু অস্ত্রমুক্ত রাখার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত’ করার কথা বলা হয়েছে এতে।

দক্ষিণ চীন সাগরের বিরোধপূর্ণ জলসীমায় চীনের আগ্রাসী কর্মকাণ্ড ও দ্বীপের মালিকানা দাবির বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্র বারবার হুঁশিয়ার করে আসছে। কিন্তু বেইজিংয়ের দাবি, দক্ষিণ চীন সাগর তাদের সার্বভৌম অঞ্চলের অংশ। ফলে সেখানে তারা কার্যক্রম চালাতে পারে।

You Might Also Like