`মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন নীতি ব্যর্থ হয়েছে’

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হোসেইন দেহকান বলেছেন, মধ্যপ্রাচ্য এবং পুরো বিশ্ব এখন মার্কিন হস্তক্ষেপকমী নীতির পরিণতি ভোগ করছে। তবে মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন নীতি ব্যর্থ হয়েছে বলে তিনি জোর দিয়ে উল্লেখ করেছেন।
শুক্রবার তেহরানের জুমা নামাজের আগে দেয়া বক্তৃতায় হোসেইন দেহকান বলেন, ২০০১ সালের ১১ সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্কের বিশ্ব বাণিজ্য কেন্দ্রে কথিত সন্ত্রাসী হামলার পর আমেরিকা মুসলিম দেশ ইরাক ও আফগানিস্তানে সামরিক আগ্রাসন চালিয়ে দখল করে নেয়। ওই আগ্রাসনের ভয়াবহ পরিণতি এখনো মধ্যপ্রাচ্যসহ পুরো বিশ্বকে ভোগ করতে হচ্ছে।
জেনারেল দেহকান বলেন, ‘বৃহত্তর মধ্যপ্রাচ্য’ নীতি প্রণয়ন করে আমরিকা মনে করেছিল মধ্যপ্রাচ্যে তারা স্থায়ী উপস্থিতি নিশ্চিত করতে পারবে এবং স্থিতিশীলতা, শান্তি, নিরাপত্তা, গণতন্ত্র ও কল্যাণের কথা বলে তারা তাদের লক্ষ্য অর্জন করবে। কিন্তু তাদের সে লক্ষ্য পূরণ হয় নি। এর পাশাপাশি মধ্যপ্রাচ্যের যেসব দেশ আমেরিকার বিরুদ্ধে দাঁড়িয়েছে সেসব দেশে অনিরাপত্তার আগুন জ্বেলে তাদের জাতীয় সক্ষমতা ধ্বংস করতে চায় ওয়াশিংটন।
জেনারেল দেহকান তার বক্তৃতার অন্য জায়গায় ইরানের সামরিক শক্তি নিয়ে কথা বলেন। তিনি বলেন, “আমাদের এমন সামরিক সম্ভাবনা ও ক্ষমতা রয়েছে যা দিয়ে সম্ভ্যাব্য যেকোনো আগ্রাসন মোকাবেলা করা সম্ভব।” তিনি জানান, দেশের সামরিক ডকট্রিন অনুযায়ী, ইরানের সামরিক শিল্প-কারখানাগুলো সব ধরনের সামরিক চাহিদা পূরণ করতে সক্ষম। তিনি বলেন, ইরানের সামরিক বাহিনীর পাশাপাশি এ অঞ্চলের প্রতিরোধ আন্দোলনগুলো ইরানের উঁচু মাত্রার সামরিক সক্ষমতার সুবিধা ভোগ করছে। মধ্যপ্রাচ্যের প্রতিটি প্রতিরোধ আন্দোলনকে ইরানের সামরিক শিল্প-কারখানাগুলো প্রয়োজনীয় সরঞ্জাম সরবরাহ করছে।