ওয়াশিংটনে একই দিনে ‘ফোবানা কনভেনশন’ এবং ‘বাংলাদেশ কালচারাল নাইট’কে কেন্দ্র করে ক্ষুব্ধ প্রবাসীরা

ওয়াশিংটন ডিসি থেকে শামসুদ্দিন মাহমুদ : বাংলাদেশ এসোশিয়ন অব গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসির উদ্যোগে আগামী ২,৩ ও ৪ সেপ্টেম্বর ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ফোবানার ৩০তম আসর। অন্যদিকে বাংলাদেশী এমেরিকান কালচারাল অর্গানাইজেশন (বাকোডিসি) এর উদ্যোগে ৩ ও ৪ সেপ্টেম্বর ক্রিষ্টাল সিটির হলিডে ইন এ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ‘বাংলাদেশ কালচারাল নাইট’। ওয়াশিংটন ডিসিতে ক’মিনিট হাটার দুরত্বে দুটি অনুষ্ঠান নিয়ে ইতিমধ্যে ক্ষুব্ধ হয়ে উঠেছে ওয়াশিংটন ডিসির বাংলাদেশ কমিউনিটি। ১৯৮৭ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে ফোবানা দ্বিধাবিভক্ত। যেখানে ফোবানা সেখানে বিভক্ত বাংলাদেশ কমিউনিটি। অন্তত ফোবানার ইতিহাস তাই বলে। ফোবানার জন্ম এ ওয়াশিংটনে হলেও উত্তর আমেরিকার প্রায় গত ২৯ বছরে অনেক অনুষ্ঠান করেছে। প্রত্যেকটি অনুষ্ঠানে লাখ লাখ ডলার খরছ হলেও কমুউনিটির প্রাপ্তি নিয়ে এখনো যথেষ্ট সন্দেহ করার কারণ অনেক। তাছাড়া এ আয়োজনকে নিয়ে কমুনিটিতে বিভাজন নতুন বিষয় নয়। বেশী দুরে না গিয়ে এই ওয়াশিংটনের উদাহরণ দিয়ে শুরু করা যাক। ২০১১ সালে ওয়াশিংটন ডিসিতে দুটি ফোবানার আসর বসেছিল। একটি গেটওয়ে ম্যারিয়টে, অন্যটি সামান্য দুরত্বে হিলটন ক্রিসটল সিটিতে। আজকের ফোবানার আয়োজক কমিটির অনেকে তখন দ্বিধাবিভক্ত ফোবনা কমিটিতে ছিলেন। যারা বিরোধিতা করেছিলেন তারাও আজ দূরত্ব কমিয়ে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ফোবানার আয়োজক কমিটিতে আছেন। স্থানীয় পর্যবেক্ষকগণ মনে করেন আয়োজক কমিটির উচিত ছিল অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে সকল গ্রুপ ও দলকে ঐক্যবদ্ধ করা। ওয়াশিংটন ডিসি মেট্রো এরিয়ায় ৪০ হাজার বাংলাদেশীর বসবাস। অবস্থা দৃষ্টে মনে হচ্ছে ফোবানা এ সকল বাংলাদেশীদের আস্থা রাখতে পুরোপুরি সক্ষম নয়। আবার স্পন্সর এবং ডোনারদের থেকে প্রায় ২ লক্ষ ডলার আদায় করা হলেও ২০ ডলার থেকে ১০০ ডলার এন্ট্রি ফি নেওয়ার যৌক্তিকতা নিয়েও অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন। সবার প্রশ্ন যদি ফোবানার মুল লক্ষ্য বাংলাদেশীদের আনন্দ দেওয়ার জন্য হয় তাহলে এন্ট্রি ফি কেন। অপরদিকে বাংলাদেশ আমেরিকান অরগানাইজেশন অব ডিসি এন্টি ফ্রি করে সকলের জন্য তাদের অনুষ্ঠানটি উম্মুক্ত করেছেন।
অরো অভিযেোগ শোনা যাচ্ছে বিবদমান আয়োজকরা এক পক্ষ অপর পক্ষের শিল্পী ও কলাকৌশলী যারা বাংলাদেশ থেকে অংশ নেবে তাদেরকে আগামীতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে বয়কটের হুমকি দিয়েয়েছেন। এধরনের নেতিবাচক কর্মকান্ড কতটুকু গ্রহণযোগ্য ও যুক্তিযুক্ত তা সচেতন প্রবাসীদের প্রশ্ন।
ওয়াশিংটন ডিসিতে বসবাসরত বাংলাদেশীরা একই সময়ে সামান্য দূরত্বে দু’টি অনুষ্ঠানের আয়োজন দেখে যেমন বিস্মিত তেমনি বিক্ষুব্ধ।
-ভার্জিনিয়া

You Might Also Like