১৫.২৫ মিলিয়ন ডলার ফেরত আনার প্রক্রিয়া চলছে

বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে চুরি হওয়া ১৫ দশমিক ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বাংলাদেশ ব্যাংকের হিসাবে স্থানান্তরের প্রক্রিয়া চলছে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

রোববার দশম জাতীয় সংসদের দ্বাদশ অধিবেশনে সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য লায়লা আরজুমান বানুর এক লিখিত প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রীর পক্ষে অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এ তথ্য জানান।

এর আগে বিকেল ৫টা ২০ মিনিটে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে দিনের কার্যসূচি শুরু হয়।

লিখিত জবাবে বলা হয, চুরি হওয়া অর্থ উদ্ধারে বাংলাদেশ ব্যাংক, বাংলাদেশ ফিন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিটসহ (বিএফআইইউ) সংশ্লিষ্ট সব আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সমন্বয়ে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। ইতিমধ্যে ফিলিপাইনের আদালতের মাধ্যমে টাকা ফেরৎ আনার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে।

জবাবে আরো বলা হয়, ফিলিপাইনের অ্যান্টি মানি লন্ডারিং কাউন্সিলের (এএমএলসি) প্রাথমিক তদন্ত এবং সিনেট শুনানিতে রিজার্ভ চুরির সঙ্গে দেশটির আরসিবিসি ব্যাংক, একটি মানি রেমিট্যান্স কোম্পানি ও তিনটি ক্যাসিনো এবং এর বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে। এএমএলসি ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট কয়েকজনের বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিংয়ের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেছে। পাশাপাশি অন্যদের সংশ্লিষ্টতা খুঁজতে তদন্ত কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে।

ফিলিপিনো-চাইনিজ ব্যবসায়ী কিম অং তার কাছে থাকা বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ থেকে চুরি করা অর্থের ১৫ দশমিক ২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার এএমএলসির কাছে ফেরৎ দিয়েছে। সেই অর্থ ফেরৎ আনার প্রক্রিয়া চলছে।

আরসিবিসি ব্যাংককে ফিলিপাইনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ইতিমধ্যে ১ বিলিয়ন পেসো (প্রায় ২১ মিলিয়ন মার্কিন ডলার) জরিমানা করেছে। এতে এ ঘটনায় ব্যাংকটির সংশ্লিষ্টতার বিষয়টি সুস্পষ্ট হয়েছে।

গত ১৬ আগস্ট মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশ ব্যাংক, ফেডারেল রিজার্ভ ব্যাংক অব নিউইয়র্ক এবং সুইফটের মধ্যে দ্বিতীয়বারের মতো ত্রিপক্ষীয় বৈঠক হয়। ফিলিপাইনের নতুন সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনার জন্য অক্টোবর মাসের শেষ সপ্তাহে বাংলাদেশ থেকে একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদলের দেশটিতে যাওয়ার বিষয়ে ভাবা হচ্ছে। সে প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে ফিলিপাইনে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত দেশটির ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা চালিয়ে যা্চ্ছেন।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসের প্রথম সপ্তাহে যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল রির্জাভ ব্যাংক অব নিউইয়র্কে বাংলাদেশ ব্যাংকের অ্যাকাউন্টের ৮১ মিলিয়ন ডলার চুরি হয়।

You Might Also Like