১৫ রানে ৭ উইকেট, ম্যাকগ্রার সেই বোলিং এই দিনেই

প্রথম ওভারের চতুর্থ বলেই উইকেট। পরের ওভারে কোনো উইকেট পাননি। এরপর নিজের টানা চার ওভারে একটি করে উইকেট। সপ্তম ওভারে দুই উইকেট। তখন গ্লেন ম্যাকগ্রার বোলিং ফিগার ৭-৪-১৫-৭!

২০০৩ ক্রিকেট বিশ্বকাপে আজকের এই দিনেই (২৭ ফেব্রুয়ারি) ৭ ওভারের একটা স্পেলে প্রতিপক্ষের ব্যাটিং লাইনআপ গুঁড়িয়ে দিয়েছিলেন ম্যাকগ্রা। অস্ট্রেলিয়ান গ্রেট নামিবিয়ার বিপক্ষে ১৫ রানে ৭ উইকেট নিয়েছিলেন। যেটি বিশ্বকাপ ইতিহাসের সেরা বোলিং।

পচেফস্ট্রুমের নর্থ ওয়েস্ট ক্রিকেট স্টেডিয়ামে প্রথমবার বিশ্বকাপে খেলতে আসা নামিবিয়ার বিপক্ষে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৩০১ রানের বড় সংগ্রহ গড়েছিল অস্ট্রেলিয়া। জবাবে ব্যাট করতে নামা নামিবিয়ার ইনিংসের শুরুতেই আঘাত হানেন ম্যাকগ্রা। তার করা ইনিংসের চতুর্থ বলেই স্লিপে রিকি পন্টিংকে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন ওপেনার বেরি বুর্গার।

চতুর্থ ওভারে ব্রেট লির বলে আরেক ওপেনার স্টিভেন সোয়ানপোয়েলও পন্টিংকে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরের পথ ধরেন। এরপরই শুরু ম্যাকগ্রা-জাদু। নিজের তৃতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ- টানা চার ওভারে তুলে নেন একটি করে উইকেট। সপ্তম ওভারে দুই উইকেট। তখন ম্যাকগ্রার বোলিং ফিগার ৭-৪-১৫-৭। ইনিংসের পরের ওভারে অ্যান্ডি বিকেল মেডেনসহ দুই উইকেট তুলে নিতেই শেষ নামিবিয়ার ইনিংস। ১৪ ওভারে নামিবিয়া অলআউট মাত্র ৪৫ রানে। ইনিংসে দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেন কেবল একজন!

১৫ রানে ৭ উইকেট নিয়ে বিশ্বকাপে নতুন বোলিং রেকর্ড গড়েন ম্যাকগ্রা। তিনি ভেঙে দেন ১৯৮৩ বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে উইনস্টন ডেভিসের ৫১ রানে ৭ উইকেটের রেকর্ড। ম্যাকগ্রার রেকর্ড টিকে আছে এখনো। ওয়ানডে ইতিহাসেই এটি এখন তৃতীয় সেরা বোলিং। ১২ রানে ৭ উইকেট আছে পাকিস্তানের শহীদ আফ্রিদির, ২০১৩ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে। আর ১৯ রানে ৮ উইকেট নিয়ে বিশ্ব রেকর্ডটা শ্রীলঙ্কার চামিন্দা ভাসের, ২০০১ সালে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে।

You Might Also Like