হাসানুল হক ইনু বাংলাদেশে প্রথম গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে সশস্ত্র রাজনীতি শুরু করেন : গয়েশ্বর

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বাংলাদেশে প্রথম গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে সশস্ত্র রাজনীতি শুরু করেন। এটা ঐতিহাসিক সত্য। তিনি হাসানুল হক ইনু ও কর্নেল তাহেরের ভাই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক আনোয়ার হোসেনকে ১৯৭৪ সালে তত্কালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এম মনসুর আলীর বাড়িতে গুলিবর্ষণ করতে দেখেছিলেন বলে দাবি করে বলেন, গুলিটা প্রথম আনোয়ার হোসেন ও হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বেই শুরু হয়।

মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী তৃণমূল দলের জেলা প্রতিনিধি সভা উপলক্ষে আলোচনা সভায় তিনি এই মন্তব্য করেন। গয়েশ্বর বলেন, আমি জাসদে ছিলাম। আমাদের একটা সিদ্ধান্ত হলো, আমরা গ্রেপ্তার-অত্যাচার-অনাচারের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাও করব। কিন্তু ঘেরাও কর্মসূচিতে সশস্ত্র আক্রমণ, এটা আমাদের জানা ছিল না। ছিলেন কে? হাসানুল হক ইনু। আর কে ছিলেন? কর্নেল তাহেরের ছোট ভাই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েক দিন আগের ভিসি আনোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, ‘আমরা জানি, মন্ত্রীর বাড়ির গেটের সামনে যাব, সরকারের পক্ষ থেকে কেউ আসবে, স্মারকলিপি নেবে। কিন্তু আমার সামনেই গুলিটা প্রথম এই আনোয়ার  হোসেন ও হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বেই শুরু হলো। যখন আত্মরক্ষার্থে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসভবন থেকে পাল্টা গুলি এল, তখন আমরা দিগ্বিদিক ছোটাছুটি করছি। কারও হাত নেই, কারও পা নেই। কত জন মারা গেছে তখন জানার সুযোগ ছিল না।’ গয়েশ্বর আরো বলেন, ১৯৭৪ সালে সরকারের বিরুদ্ধে হরতালের ডাক দেয় জাসদ। সেই হরতালে বোমা ব্যবহারের জন্য বোমা বানানোর দায়িত্ব দেয়া হয় ইঞ্জিনিয়ার নিখিল চন্দ্র সাহাকে। যাত্রাবাড়ীর পরিত্যক্ত বাড়ির মধ্যে কয়েক জনকে নিয়ে নিখিল বোমা বানাতে যায়। হঠাত্ করে তার নিজের হাতের মধ্যে একটা বোমা ফাটে। নিখিলের সম্মানার্থে পেট্রোল বোমার নাম রাখা হলো ‘নিখিল’। আপনারা তথ্যমন্ত্রীকে (ইনু) জিজ্ঞাসা করবেন, বোমার অপর নাম নিখিল ছিল কি না?

নেতাকর্মীদের উদ্দেশ করে তিনি বলেন, হতাশ হওয়ার কিছু নেই। ২০১৯ সালে নয়— এর আগেই সরকারকে জাতীয় সংসদ নির্বাচন দিতে হবে। আর সেই নির্বাচন অবশ্যই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হবে।

সূত্র : ইত্তেফাক

You Might Also Like