হামলার আশঙ্কায় ইউরোপ জুড়ে সতর্কতা

সম্ভাব্য সন্ত্রাসবাদী হামলার আশঙ্কায় ইউরোপজুড়ে সতর্কতা জারি করা হয়েছে। গত সপ্তাহে প্যারিসের শার্লি এবদো পত্রিকা কার্যালয়ে হামলার পর ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পরিচালিত সন্ত্রাসবাদবিরোধী ও সন্দেহভাজন জঙ্গিদের গ্রেফতার অভিযানের মধ্যেই এ সতর্কতা জারি করা হলো।
এ অভিযানে শুক্রবার পর্যন্ত বেলজিয়াম, ফ্রান্স ও জার্মানিতে ২০ জনের বেশি সন্দেহভাজন জঙ্গিকে গ্রেফতার কিংবা আটক করা হয়েছে। ফ্রান্সের পর ইউরোপের দ্বিতীয় দেশ হিসেবে পুলিশের পাশাপাশি সেনা মোতায়েন করেছে বেলজিয়াম।
বেলজিয়ামে সন্ত্রাসবাদবিরোধী এ অভিযান শুরু হয় বৃহস্পতিবার। এতে দুই ব্যক্তি নিহত হন।
এর একদিন পর শুক্রবার বেলজিয়াম সরকার সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে নতুন পদক্ষেপ নেওয়ার ঘোষণা দেয়। এসব পদক্ষেপের মধ্যে রয়েছে, সন্ত্রাসবাদের উদ্দেশ্যে ভ্রমণকে অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করা এবং দ্বৈত নাগরিকত্ব থাকা বেলজিয়ামের নাগরিকদের মধ্যে সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে জড়িত থাকার ঝুঁকি রয়েছে এমন ব্যক্তিদের ওপর নজরদারি বাড়ানো।
শুক্রবার শুরু হওয়া এ অভিযানে বেলজিয়ামে মোট ১২ ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে যাদের মধ্যে পাঁচ জনের বিরুদ্ধে ‘সন্ত্রাসবাদি কার্যক্রমে যুক্ত’ থাকার অভিযোগ আনা হয়েছে। অভিযানে বে আইনি অস্ত্র, পুলিশের ইউনিফর্মসহ বিপুল পরিমাণ অর্থ উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে দেশটির পুলিশ।
তবে বেলজিয়ামে সন্ত্রাসবাদী হামলার ষড়যন্ত্র ও গত সপ্তাহে প্যারিসে শার্লি এবদো কার্যালয়ে হামলার মধ্যে কোনো যোগসূত্র নেই বলে জানিয়েছেন ইউরোপের নিরাপত্তা বিশ্লেষকরা।
প্যারিসে হামলার পর থেকে শুক্রবার পর্যন্ত শুধু প্যারিসেই ১২ ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। ফ্রান্সের ৫টি শহরে পুলিশি অভিযান অব্যাহত রয়েছে। দেশ জুরে ১ লাখ ২০ হাজার পুলিশ ও সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।
এদিকে প্যারসে শার্লি এবদো কার্যালয়ে হামলার একদিন আগে এক হামলাকারীর স্পেন সফরের ব্যাপারে তদন্ত শুরু করেছে স্পেনের গোয়েন্দারা। শুক্রবার জার্মানিতে সন্দেহভাজন ২ ব্যক্তিকে আটক করেছে দেশটির পুলিশ।
এছাড়া সম্ভাব্য সন্ত্রাসবাদী হামলার ব্যাপারে সতর্ক থাকার জন্য যুক্তরাজ্যের পুলিশকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।
ইউরোপীয় ইউনিয়ন পুলিশের (ইউরোপুল) প্রধান রব ওয়েইনরাইট বলেন, ‘ইউরোপজুরে নিরাপত্তা জোরদারের প্রয়োজনীয়তা এ অঞ্চলে সন্ত্রাসবাদের জটিল প্রকৃতির বিয়ষটি সামনে নিয়ে এসেছে। আমরা সম্ভাব্য কয়েক হাজার সন্ত্রাসীকে গ্রেফতারের বিষয়ে কাজ করে যাচ্ছি। তবে সন্ত্রাসবাদী পরিকল্পনা চিহ্নিত করা আসলেই কঠিন কাজ। কারণ এরা কোনো চেইন অব কমান্ড বা নিয়ন্ত্রণ পদ্ধতিতে কাজ না করে বরং স্বেচ্ছায় ও স্বাধীনভাবে কাজ করে।’ সূত্র: বিবিসি

You Might Also Like