হলমার্ক কেলেঙ্কারী : দুদকের চার্জশিট দাখিল

সোনালী ব্যাংকের রূপসী বাংলা শাখায় হলমার্ক গ্রুপের অর্থ কেলেঙ্কারির ঘটনার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট পাচঁটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ১০টি মামলার অভিযোগপত্র (চার্জশিট) আদালতে দাখিল করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। রোববার দুপুরে আদালতে মূখ্য মহানগর হাকিম আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

উল্লেখ, ৬ জুন রোববার দুদকের নিয়মিত বৈঠকে এসব মামলার চার্জশীট অনুমোদন দেওয়া হয় দুদক।

এর আগে, গত ৬ মে ২১ জনকে আসামী করে ১০টি মামলার অনুমোদন দিয়েছিল দুদক। এর মধ্যে সোনালী ব্যাংকের ১১ কর্মকর্তা ও হলমার্কের সহযোগী তিনটি প্রতিষ্ঠানের ১০ জন রয়েছেন। তাদের বিরুদ্ধে ১৮ কোটি ৬৮ লাখ ৬১ হাজার ৪শ’ ৫৭ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছিল। আর ২০১৩ সালের জানুয়ারিতে ফান্ডের প্রায় ৩৭৩ কোটি টাকা লোপাটের অভিযোগে ওই ২৭টি মামলা দায়ের করা হয়েছিল।

যেসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়েছে সেগুলো হলো- নকশি নিট কম্পোজিট লিমিটেড, খানজাহান সোয়েটার, প্যারাগন নিট কম্পোজিট, ডিএন স্পোর্টস ও টি অ্যান্ড ব্রাদার্স।

১৭ মামলার প্রতিবেদনে সোনালী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও হুমায়ুন কবিরসহ ব্যাংকের ১৬ কর্মকর্তাসহ ওই দুই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের আসামি করা হয়েছে।

বাকি অভিযুক্তরা হলেন- টি অ্যান্ড ব্রাদার্সের চেয়ারম্যান জিনাত ফাতেমা, এমডি তাওহীদ হাসান, পরিচালক তসলিম হাসান, নকশি নিটের চেয়ারম্যান আমেনা বেগম, এমডি মো. আবদুল মালেক ও তাদের সহযোগী জামির হোসেন।

এছাড়াও সোনালী ব্যাংকের বাকি যাদের অভিযুক্ত করা হয়েছে তারা হলেন ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের সাবেক ডিএমডি মাঈনুল হক (ওএসডি), আতিকুর রহমান (ওএসডি), জিএম আ ন ম মাশরুরুল হুদা সিরাজী, ডিজিএম শেখ আলতাফ হোসেন, মো. সফিজ উদ্দিন আহমেদ, কানিজ ফাতেমা চৌধুরী, এজিএম মো. কামরুল হোসেন খান (সাময়িক বরখাস্ত), খুরশীদ আলম, জিএম অফিসের জিএম ননী গোপাল নাথ (ওএসডি), মীর মহিদুর রহমান, সাবেক জিএম সবিতা সিরাজ, এজিএম আশরাফ আলী পাটোয়ারী, রূপসী বাংলা শাখার (সাবেক হোটেল শেরাটন) সাবেক ব্যবস্থাপক (পরে ডিজিএম) একেএম আজিজুর রহমান (হলমার্কের মামলায় কারাগারে), এজিএম (সাময়িক বরখাস্ত) মো. সাইফুল হাসান ও নির্বাহী কর্মকর্তা (সাময়িক বরখাস্ত) মোহাম্মদ আবদুল মতিন।

দুদক সূত্র জানা যায়, অভিযোগপত্রে ওই তিন প্রতিষ্ঠান ও সোনালী ব্যাংকের ২১ জনকে আসামি করা হয়েছে। তারা হলেন: প্যারাগন নিট কম্পোজিটের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সাইফুল হাসান রাজা, পরিচালক আব্দুল্লাহ আল মামুন ও তাদের সহযোগী মুকুল হোসেন। ডিএন স্পোর্টসের চেয়ারম্যান মোতাহার উদ্দিন, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) শফিকুর রহমান, অফিসার ফাহমিদা আক্তার শিখা। খান জাহান আলী সোয়েটারের চেয়ারম্যান তাজুল ইসলাম, ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) শেখ আ. জলিল, পরিচালক রফিকুল ইসলাম ও পরিচালক মীর মো. শওকত আলী।

You Might Also Like