Uncategorized

স্বেচ্ছায় স্ত্রী বিসর্জন!

চট্টগ্রামের বোয়ালখালীতে বিয়ের ১৮ দিনের মাথায় স্ত্রীর মন রাখতে উদারতার পরিচয় দিয়েছেন এক স্বামী। স্ত্রীর অনুরোধে প্রেমিকের হাতে তুলে দিলেন তিনি।

উপজেলার পূর্ব গোমদণ্ডী দত্তপাড়া গ্রামের অরুণ চক্রবর্তীর ছেলে সুমন চক্রবর্তীর সঙ্গে একই উপজেলার মধ্যম কধুরখীল সুরঞ্জন বণিকের বাড়ির রতন চক্রবর্তীর মেয়ে তুলি চক্রবর্তীর (১৮)পারিবারিক সম্মতিতে বিয়ে হয়।

বিয়ের পর তুলি চক্রবর্তী তার সঙ্গে বিয়ের আগে সিটি কলেজের অনার্স শেষ বর্ষের ছাত্র সাইদুল ইসলাম জুয়েলের সম্পর্কের কথা স্বামীকে জানান। তার সঙ্গে সংসার করতে অপারগতা প্রকাশ করেন তুলি। স্বামী বিভিন্নভাবে বুঝিয়েও তাকে রাজি করাতে না পেরে অবশেষে প্রেমিক জুয়েলকে ফোনে ডেকে এনে বুধবার স্ত্রী তুলিকে তার হাতে তুলে দেন।

এদিকে তুলি ও জুয়েল চট্টগ্রাম শহরে যাওয়ার পথে কালুরঘাট এলাকা থেকে তুলির মা-বাবা তাদের ধরে নিয়ে আসে।

একপর্যায়ে বিষয়টি থানা-পুলিশ পর্যন্ত গড়ায়। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এ বিষয়ে বুধবার রাত ১০টা পর্যন্ত থানায় ঘটনাটি নিয়ে সমঝোতার চেষ্টা চলে। ঘটনা জানাজানি হলে রাত ১০টার দিকে থানায় শতশত লোক প্রেমিকযুগলকে একনজর দেখতে ভিড় জমায়।

তুলি চক্রবর্তী জানান, বিয়েতে আমার মত ছিল না। জুয়েলের সাথে সম্পর্কের কথা আমি আমার পরিবারকে জানালেও তারা জোর করে আমাকে বিয়ে দেন।

তিনি জানান, নগরীর আলকরণ এলাকায় বাসায় থাকার সময় ঝালকাঠি জেলার নিজঘেরাও গ্রামের ও চট্টগ্রাম নগরীর বন্দর এলাকায় বসবাসরত সাইদুল ইসলাম জুয়েলের সাথে আমার পরিচয় হয়।

তুলি উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এইচএসসি পাস করেছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন বোয়ালখালী থানার অফিসার ইনচার্জ মো. শামসুল ইসলাম। তিনি জানান, তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। তবে কি ব্যবস্থা হয়েছে তা জানাননি।