হোম » স্বামীদের পানিতে চোবালেন স্ত্রীরা

স্বামীদের পানিতে চোবালেন স্ত্রীরা

ঢাকা অফিস- Tuesday, May 16th, 2017

সূর্য তখন আগুন ঝরাচ্ছে। গাছ-গাছালিতে ঘেরা নিস্তরঙ্গ পুকুর পাড়ে হঠাৎ আলোড়ন! জনাছয়েক লোককে পানিতে চোবাতে শুরু করলেন জনাছয়েক মহিলা। কেউ কারও অপরিচিত নন। স্বামী-স্ত্রী। তবে এই চোবানো দুস্টুমি বা ভালোবাসার ছলে নয়, চোলাই মদের নেশা ছাড়াতেই এই জলচিকিৎসা চলছিল।

সোমবার দুপুরে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের আরামবাগের বাজুয়া গ্রামের পোদোর পুকুর পাড়ে এই দৃশ্যের আগেই অবশ্য রণংদেহি মূর্তিতে দেখা গিয়েছে গ্রামের মহিলাদের। শান্তি রায়, অপর্ণা বাগ, সুশীলা রায়ের মতো শ’খানেক মহিলা আচমকাই লাঠিসোটা নিয়ে ওই পুকুর পাড়ের অন্তত ১৫টি চোলাই ভাটিতে হামলা চালান। মদ নষ্ট করেন এবং মদ তৈরির সরঞ্জাম ভেঙে দেন। অবশ্য ভাটি-মালিকদের ধরতে পারেননি।

এই হইচইয়ের মধ্যেও বসেছিলেন কয়েক জন গ্রামবাসী। আকণ্ঠ চোলাই খেয়ে নড়াচড়ার ক্ষমতাই হারিয়ে ফেলেছিলেন তারা। স্ত্রীরা তাদের ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে শুনতে হচ্ছিল কটূ কথা।

গৃহিনী শান্তিদেবী বলেন, ‘কাজে বেরিয়ে স্বামী দুপুরে বাড়ি ফেরেনি। খবর নিয়ে জানতে পারি, অনেকের সঙ্গে পোদোর পাড়ে বসে চোলাই গিলছে। তার পরেই লাঠিঝাঁটা নিয়ে দল বেঁধে বের হই।’

ছোট্ট গ্রামটিতে বেশির ভাগ মানুষই খেতমজুরি বা দিনমজুরি করেন। কিন্তু সারাদিন খেটে যা আয় হয়, তার বেশির ভাগটাই তারা চোলাইয়ের ভাটিতে দিয়ে আসেন বলে অভিযোগ। শুধু তাই নয়, নেশা করে বাড়ি ফিরে পরিবারে অশান্তিও ছিল চেনা ছবি। মহিলারা জানান, দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়াতেই তারা এ দিন রাস্তায় নেমেছিলেন।

চোলাইয়ের রমরমা নিয়ে গোঘাটের দু’টি ব্লকেই অভিযোগ দীর্ঘদিনের। চোলাই উচ্ছেদ নিয়ে পুলিশ ও আবগারি দফতরের বিরুদ্ধে নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগও আছে।

গোঘাট আবগারি দফতরের ওসি গৌরাঙ্গ ঘোষ অবশ্য দাবি করেন, ‘নিয়মিত অভিযান চালাই। চোলাইয়ের আধিক্য অনেক কমেছে।’

কিন্তু গ্রামবাসীরা বলছেন, প্রশাসন সক্রিয় হলে এমন দিন আসত না।

সর্বশেষ সংবাদ