সৌদি আরবে সামরিক প্রদর্শনী: অস্ত্র ব্যবসার দিকে ঝুঁকছে রিয়াদ

সৌদি আরবের একজন সামরিক কর্মকর্তা দাবি করেছেন, সামরিক অস্ত্র উৎপাদন বিষয়ক প্রদর্শনী চলাকালে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে রিয়াদের অস্ত্র বিক্রি সংক্রান্ত ৩৩টি চুক্তি সই হয়েছে। সামরিক প্রদর্শনীর মুখপাত্র মেজর জেনারেল আতিয়া আল মালেকি জানান, সৌদি আরবের অস্ত্র নির্মাণ কোম্পানির সঙ্গে বিভিন্ন দেশ থেকে আসা প্রতিনিধিরা এসব চুক্তিতে সই করেছেন। তবে সৌদি এ সেনা কর্মকর্তা কত টাকা মূল্যের অস্ত্রচুক্তি হয়েছে সে বিষয়ে কিছু উল্লেখ করেন নি।

পর্যবেক্ষকরা বলছেন, সৌদি আরবে অস্ত্র প্রদর্শনী এবং বিভিন্ন দেশের সঙ্গে চুক্তি সই করা থেকে বোঝা যায় তারা সামরিক ক্ষেত্রে আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করছে। সৌদি আরব এমন সময় অস্ত্র বিক্রয় চুক্তির কথা জানালো যখন তারা নিজেরাই গত পাঁচ বছরে অস্ত্র আমদানির দিক থেকে দ্বিতীয় ও তৃতীয় অবস্থানে ছিল। সৌদি রাজা সালমান বিন আব্দুল আজিজ ক্ষমতায় আসার পর থেকে দেশটির অস্ত্র কেনার পরিমাণ বহু গুণে বেড়েছে। সৌদি রাজা বর্তমানে এ অঞ্চলে সামরিক আধিপত্য বিস্তারের জন্য ব্যাপক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে সামরিক শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনের জন্য সৌদি সরকার এ পর্যন্ত বিপুল অর্থ ব্যয় করায় দেশটি এরই মধ্যে মারাত্মক অর্থনৈতিক সংকটে পড়েছে।

অবস্থা এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে, সৌদি আরবের বাজেট ঘাটতি দেখা দিয়েছে। সরকার বিপুল অর্থ ব্যয় করে এতো অস্ত্র কেনায় দেশটির জনমনে ব্যাপক প্রতিবাদ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। আমেরিকাসহ পাশ্চাত্যের দেশগুলো এমন সময় সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রি করছে যখন মানবাধিকার গোষ্ঠী ও ত্রাণ সহায়তাকারী সংস্থার সমন্বয়ে গঠিত “আন্তর্জাতিক অস্ত্র নিয়ন্ত্রণকারী জোট” সৌদি আরবের কাছে অস্ত্র বিক্রি না করার জন্য বিশ্বের দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।
পর্যবেক্ষকরা বলছেন, সৌদি আরব অস্ত্র কেনার দিকে ঝুঁকে পড়ায় আগামীতে আরো অর্থনৈতিক সংকটে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে। এ কারণে দেশটি নিজস্ব উদ্যোগে অস্ত্র তৈরির পদক্ষেপ নিয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। কিন্তু অনেকে মনে করছেন, সৌদি আরবের নিজস্ব বলে আসলে কিছু নেই। কারণ তারা যে সামরিক শিল্প গড়ে তোলার কথা বলছে তা পাশ্চাত্যের ওপর নির্ভরশীল এবং এতে করে দেশটি আরো বেশি পাশ্চাত্যের পর নির্ভরশীল হয়ে পড়বে। বাইরে থেকে অস্ত্র কেনা কিংবা নিজস্ব উদ্যোগে অস্ত্র তৈরির যে কথা সৌদি আরব বলছে তাতে এসব অস্ত্র সন্ত্রাসীদের হাতে পড়ায় এ অঞ্চলের নিরাপত্তাহীনতা বেড়েছে।

প্রকৃতপক্ষে, সৌদি আরব আসলে অস্ত্রের প্রদর্শনী করে নিজের শক্তিমত্বা তুলে ধরার চেষ্টা চালাচ্ছে। যদিও সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট আমেরিকার সব রকম সাহায্য ও সহযোগিতা নিয়েও ইয়েমেন যুদ্ধে ব্যর্থ হয়েছে।

You Might Also Like