হোম » সেফ জোনের অর্থ তুর্কি সেনা উপস্থিতি নয়: সিরিয়া

সেফ জোনের অর্থ তুর্কি সেনা উপস্থিতি নয়: সিরিয়া

ঢাকা অফিস- Sunday, September 17th, 2017

সিরিয়া সরকার দেশটির ইদলিব প্রদেশে নিরাপত্তা অঞ্চল প্রতিষ্ঠার চুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছে। দামেস্ক একই সঙ্গে বলেছে, এই অঞ্চল প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে তুরস্ককে সিরিয়ায় সেনা মোতায়েন করে রাখার ম্যান্ডেট দেয়া হয়নি।

সিরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা দেশটির সরকারি বার্তা সংস্থা সানাকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এই সতর্কবাণী উচ্চারণ করেছেন।
তিনি বলেন, সিরিয়ার চলমান সংঘাত ও রক্তপাত বন্ধ করার পাশাপাশি জনগণের দুঃখ-কষ্ট লাঘবের যেকোনো পদক্ষেপকে দামেস্ক স্বাগত জানায়। সিরিয়া সংকট সমাধানের লক্ষ্যেই কাজাখস্তানের রাজধানী আস্তানায় অনুষ্ঠিত ছয় দফা শান্তি বৈঠকে দামেস্ক খোলামন ও আশাবাদ নিয়ে অংশগ্রহণ করেছে বলেও জানান তিনি।
ওই কর্মকর্তা বলেন, সিরিয়ার উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় ইদলিব প্রদেশে নিরাপত্তা অঞ্চল প্রতিষ্ঠার চূড়ান্ত চুক্তি সই করার ব্যাপারে তেহরান ও মস্কোকে পূর্ণ ক্ষমতা দিয়েছে দামেস্ক। সেইসঙ্গে সিরিয়া আশা করছে, তুরস্ক উগ্র সন্ত্রাসীদের পৃষ্ঠপোষকতা বন্ধ করার পাশাপাশি সিরিয়ায় সন্ত্রাসী পাঠানো বন্ধ করবে। তিনি বলেন, সিরিয়ার সংঘর্ষপীড়িত এলাকাগুলোতে নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠায় তুরস্ক সহযোগিতা করবে বলেও দামেস্ক আশা করছে।
সিরিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ওই কর্মকর্তা বলেন, কাজেই তার দেশে নিরাপত্তা অঞ্চল প্রতিষ্ঠার অর্থ এই নয় যে, তুরস্ক সেখানে সেনা মোতায়েন করে রাখবে। দামেস্কের দৃষ্টিতে সিরিয়ায় তুর্কি সেনা মোতায়েন সম্পূর্ণ অবৈধ বলেও তিনি মন্তব্য করেন।
শুক্রবার, ১৫ সেপ্টেম্বর আস্তানায় সিরিয়া বিষয়ক ষষ্ঠ শান্তি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয় যাতে সিরিয়ার পাশাপাশি রাশিয়া, ইরান ও তুরস্ক অংশগ্রহণ করে। ওই বৈঠকে সিরিয়ার ইদলিব প্রদেশে নিরাপত্তা অঞ্চল প্রতিষ্ঠার খুঁটিনাটি নিয়ে আলোচনা শেষে একটি চুক্তি সই হয়।
কাজাখস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী কাইরাত আব্দরাহমানভ বলেছেন, অক্টোবরের শেষ নাগাদ আস্তানায় সিরিয়া বিষয়ক সপ্তম বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।