সাতক্ষীরায় পুলিশের গুলিতে জামায়াত কর্মী নিহত

সাতক্ষীরার দেবহাটায় পুলিশের গুলিতে নিহত হয়েছে জামায়াত কর্মী সিরাজুল ইসলাম (৪৫)। তিনি দেবহাটা উপজেলার চিলেডাঙা গ্রামের বাবর আলীর ছেলে। উপজেলার সখীপুর ইউনিয়নের পাতনার বিলের কেওড়াতলা নামকস্থানে মঙ্গলবার ভোর ৫টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ জানায়, জামায়াত শিবিরের ছোঁড়া ককটেলে ২ পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। আহত পুলিশ সদস্যরা হলেন সিপাহী জামিরুল ইসলাম ও মঈনুদ্দিন। তাদেরকে সখীপুর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

দেবহাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কাজী জামালউদ্দিন জানান, কয়েকজন জামায়াত-শিবির কর্মী সহিংসতার পরিকল্পনা করছে এমন খবরের ভিত্তিতে পাতনার বিলের গুচ্ছগ্রামের পাশে কেওড়াতলা নামক স্থানে ভোর চারটার দিকে পুলিশ অভিযান চালায়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে জামায়াত-শিবির কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ৫/৬ টি ককটেল ছোড়ে। পুলিশ আত্মরক্ষার্থে সেখানে ১০ রাউন্ড গুলি ছোড়ে। এ সময় সিরাজুল গুলিবিদ্ধ হন। আহত সিরাজুলকে দ্রুত সখিপুর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে দুটি অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছিল।

সিরাজুল ইসলাম আওয়ামী লীগ নেতা আবু রায়হান হত্যা, গাছ কাটা, সহিংসতাসহ একাধিক মামলার সন্দিগ্ধ আসামি বলে ওসি জানান।

এদিকে নিহতের স্বজনরা জানান, সিরাজুল একজন সবজি ব্যবসায়ি। সম্প্রতি তাদের গ্রামের জামায়াত থেকে আওয়ামী লীগে যোগদানকারী আবু সাঈদের ছেলে হাফিজুল ইসলামসহ কয়েকজন সোমবার সন্ধ্যায় সিরাজুলকে তার বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে মারপিট করে। এরপর পুলিশে দেয়। মঙ্গলবার ভোরে পুলিশ তাকে গুলি করলে সে মারা যায়।

এদিকে শিবির নেতা আমিনুর হত্যার প্রতিবাদে জেলাতে ঢিলেঢালা হরতাল পালন করছে জামায়াত শিবির। হরতালের সমর্থনে সকাল ৯টা পর্যন্ত শহরে কোন মিছিল সমাবেশ চোখে পড়েনি। স্থানীয় রুটে যান চলাচল তুলনামূলক কম।

You Might Also Like