সম্পর্ক আছে বলে ভারতের দাসত্ব মেনে নেব না : শিল্পমন্ত্রী

শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু বলেছেন, ভারতের সাথে আমাদের সম্পর্ক আছে বলে তাদের দাসত্ব মেনে নেব না। আমাদের স্বার্থ আমরা আদায় করে আনবো।

সোমবার বিকেলে রাজধানীর কাকরাইলে ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স ইনিস্টিটিউট মিলনায়তনে শোক দিবস উপলক্ষে আয়োজিত শ্রমিক লীগের আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, বিএনপিসহ যে সকল স্বাধীনতা বিরোধী অপশক্তি দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে বাধা দেবে তাদের রাজনৈতিকভাবে মোকাবেলা করা হবে।

তিনি বলেন, আমাদের বিরুদ্ধে বলা হতো আমরা ভারতের দালাল। কিন্তু এই শেখ হাসিনা ভারতের বিরুদ্ধে মামলা করে সমুদ্র সীমার জয় এনেছে। ফারাক্কা চুক্তি করেছে, তিস্তা চুক্তির বিষয়ে পদক্ষেপও তিনিই নিয়েছেন। ভারতের সঙ্গে বন্ধত্বসুলভ আচরণের মাধ্যমে যে বিষয়গুলোর সমাধান হয়নি আন্তর্জাতিক আদালতের মাধ্যমে তার সমাধান করা হয়েছে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, একদিকে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের সকল মুক্তিযুদ্ধের শক্তি এক হয়েছে। অপর দিকে সকল অশুভ শক্তি বিএনপির  নেতৃত্বে এক হয়ে ২০ দলীয় জোট বেঁধেছে। দেশের উন্নতি করতে হলে এই সকল অশুভ শক্তিকে সমূলে নির্মূল করতে হবে। তাদের বিষদাঁত উপড়ে ফেলতে হবে।

জিয়াউর রহমান কখনো মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না উল্লেখ করে তিনি বলেন, তিনি চাপে পড়ে মুক্তিযুদ্ধে গিয়েছিলেন। প্রকৃত পক্ষে তিনি কখনো চেতনায় মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন না। পাকিস্তানের অস্ত্রের চালান যে জাহাজে এসেছিল সেই জাহাজের দায়িত্বে ছিলেন তিনি।

তিনি বলেন, জিয়া ক্ষমতায় এসে ১১ হাজার যুদ্ধাপরাধীকে জেল থেকে মুক্তি দিয়েছিল। কুখ্যাত গোলাম আজমকে দেশে ফিরিয়ে এনে নাগরিকত্ব দেয়। যুদ্ধাপরাধী আব্দুল আলীমকে তিনি মন্ত্রী বানান। এগুলো কিসের জন্য? একমাত্র পাকিস্তানের এজেন্ডা বাস্তবায়নের জন্য এগুলো করেছেন তিনি।

শ্রমীক লীগের সভাপতি শুক্কুর মাহমুদের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন- শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ ও সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম প্রমুখ।

You Might Also Like