শিক্ষামন্ত্রীর কাছে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের ৫ দাবি

আলাদা বেতন কাঠামো প্রবর্তন ও বেতন বৈষম্য দূর করতে আন্দোলনরত বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের কাছে পাঁচ দফা দাবি জানিয়েছেন।

মঙ্গলবার বিকেলে সচিবালয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বৈঠকের শুরুতে পাঁচ দফা দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি শিক্ষামন্ত্রীর হাতে তুলে দেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের সভাপতি অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।

এতে বলা হয়েছে, ৩০ অক্টোবরের মধ্যে পাঁচ দফা দাবি মেনে নিতে হবে। অন্যথায় ১ নভেম্বর থেকে শিক্ষকরা লাগাতার কর্মবিরতি পালন করবেন।

শিক্ষকদের দাবিগুলো হলো-
১. বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্র বেতন স্কেল প্রবর্তন করতে অবিলম্বে একটি ‘বেতন কমিশন’ গঠন করতে হবে।
২. স্বতন্ত্র বেতন স্কেল বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত অষ্টম বেতন কাঠামো পুনর্নির্ধারণ করে জ্যেষ্ঠ অধ্যাপকদের বেতন ভাতা গ্রেড-১, অধ্যাপকদের গ্রেড-২, সহযোগী অধ্যাপকদের গ্রেড-৩, সহকারী অধ্যাপকদের গ্রেড-৫ ও প্রভাষকদের ৭ম গ্রেড নির্ধারণ করা হোক।
৩. প্রস্তাবিত গ্রেড-১প্রাপ্ত জ্যেষ্ঠ অধ্যাপক হতে ২৫ শতাংশ শিক্ষকের সুপার গ্রেডের দুই নম্বর ধাপে বেতন-ভাতা প্রদান করা হোক।
৪. রাষ্ট্রীয় ওয়ারেন্ট অব প্রিসিডেন্সে শিক্ষকদের প্রত্যাশিত বেতন কাঠামো অনুযায়ী পদমর্যাদা নিশ্চিত করা হোক। প্রযোজ্য ক্ষেত্রে সরকারি কর্মকর্তাদের অনুরুপ সুযোগ-সুবিধা শিক্ষকদের ক্ষেত্রেও নিশ্চিত করা হোক।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে শিক্ষক সমিতির নেতাদের দাবি-দাওয়া নিয়ে আলোচনা চলছিল।

বৈঠকের শুরুতে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, ‘আমরা শিক্ষা পরিবার সমস্যা সমাধানের জন্য বৈঠকে বসছি। শিক্ষকরা মাথার মণি। জাতির নিয়ামক শক্তি। তাদের সমস্যা সরকার উপলব্ধি করছে। বিষয়টি নিয়ে সরকারের গঠন করা কমিটির সঙ্গে বসব। আমরা চাই, শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ বজায় থাকুক। একই সঙ্গে শিক্ষকদের সমস্যা আলোচনার মাধ্যমে সমাধান হোক।’

You Might Also Like