হোম » শহর চলবে মাস্টারপ্ল্যানে, জেল-জরিমানা নতুন শাস্তি

শহর চলবে মাস্টারপ্ল্যানে, জেল-জরিমানা নতুন শাস্তি

ঢাকা অফিস- Tuesday, April 18th, 2017

মাস্টারপ্ল্যান অনুযায়ী রাজশাহী শহর পরিচালিত হবে। রাজশাহী সিটি করপোরেশন যতটুকু এলাকা ততটুকু নিয়েই হবে রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ।

এমন নতুন ধারা যুক্ত করেই রাজশাহী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ আইন, ২০১৭ এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। আইনে নতুন করে অপরাধ, অপরাধের ধরণ, অপরাধের শাস্তিসহ নতুন বেশকিছু বিষয় আনা হয়েছে।

সোমবার সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পরে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ১৯৭৬ সালের আইন এটি। নাম ছিল রাজশাহী টাউন ডেভেলপমেন্ট অথরিটি অর্ডিন্যান্সটি। সামরিক শাসনামলের আইন পরিবর্তন করে এটাকে নতুন আইন করার বাধ্যবাধকতা আছে, সেজন্য এটি নিয়ে আসা হয়েছে।

সচিব বলেন, অধ্যাদেশটির নতুন কিছু বিষয় ছাড়া তেমন কোনো পরিবর্তন নেই। আগে মাস্টারপ্ল্যান, অপরাধ ও শাস্তিসহ বেশকিছু বিষয় আইনে ছিল না। এখন এসব বিষয় নতুন করে যুক্ত করা হয়েছে- বলেন তিনি।

শফিউল আলম বলেন, আগে মাস্টারপ্ল্যান ছিল না, নতুন আইনে রাজশাহী শহর মাস্টারপ্ল্যানের আওতায় চলবে বলা হয়েছে। মহাপরিকল্পনা কিভাবে করতে হবে সে বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়েছে। তবে কর্তৃপক্ষ যেভাবে আছে সেভাবে চলবে।

তিনি বলেন, আইনের ২৫ ধারায় বলা হয়েছে, মাস্টারপ্ল্যানের পরিপন্থী কর্মকাণ্ড তথা কোনো ব্যক্তি মহাপরিকল্পনায় উল্লেখিত বা চিহ্নিত কোনো উদ্দেশ্য ছাড়া অন্য কোনো উদ্দেশ্যে ভূমি ব্যবহার করে তাহলে তা অপরাধ হিসেবে গণ্য হবে।

আর অপরাধের শাস্তি হিসেবে অনূর্ধ্ব এক বছরের কারাদণ্ড বা সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা কিংবা উভয় দণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে। আর এই বিধান নতুন যুক্ত করা হয়েছে আইনে- বলেন সচিব।

এ প্রসঙ্গে তিনি তিনি আরো বলেন, জলাধার খনন বা ভরাট, পাহাড় বা টিলা কাটা এসব কাজ করলে মালিককে এটা বন্ধ করার জন্য নির্দেশ দিতে পারবে কর্তৃপক্ষ। যদি এটা কেউ অমান্য করে তবে তাকে এক বছরের কারাদণ্ড বা ৫০ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড দেওয়া যাবে। তা ছাড়া নিচু জমি ভরাট ও পানি প্রবাহে বাধাগ্রস্ত করার ক্ষেত্রেও একই শাস্তির কথা বলা আছে।

এর আগে ২০১৬ সালের ২০ জুন এ আইনের খসড়া নীতিগত অনুমোদন দেয় মন্ত্রিসভা।