শরীয়তপুরে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ : আহত ১০

আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলা সদরে আওয়ামী লীগের দুই গ্রুপের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছে।

আহতদের গোসাইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করায় গোসাইরহাট বাজারে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ বিষয়ে এখনও কোন মামলা হয়নি।

গোসাইরহাট থানা ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, শরীয়তপুর জেলার গোসাইরহাট উপজেলা সদরে অবস্থিত গোসাইরহাট বাজারের ইজারা নিয়ে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে গোসাইরহাট উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও  উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান দেওয়ান মো. শাহজাহান ও গোসাইরহাট পৌরসাভা আওয়ামীলীগের যুগ্ম আহবায়ক ও পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিউর রহমান মিন্টু বেপারীর মধ্যে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছে।

গত শুক্রবার মিন্টু বেপারীর সমর্থক প্রবীন আওয়ামীলীগ নেতা দাসের জঙ্গল গ্রামের হাবিবুর রহমান রাড়ী ও শাহজান দেওয়ানের সর্মথক একই গ্রামের বাচ্চু সিকদারের মধ্যে হাবিব রাড়ীর গাছের আম পাড়াকে কেন্দ্র করে ঝগড়া হয়। এ নিয়ে দুই পক্ষই থানায় অভিযোগ দেয়। পরে শাহজান দেওয়ান তাদের মীমাংসা করে দেওয়ার কথা বলে।

শনিবার রাতে এ বিষয়ে গোসাইরহাট উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও  উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান দেওয়ান মো. শাহজাহান ও প্রবীন আওয়ামী লীগ নেতা দাসের জঙ্গল গ্রামের হাবিবুর রবমান রাড়ীর সাথে তর্ক বির্তক হয়। এক পর্যায়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। এ সময় হাবিবুর রহমান রাড়ী আহত হয়।

এ নিয়ে রোববার সকাল ১০ টায় দুই পক্ষই বাজারের দুই পার্শ্বে লাঠিসোটা নিয়ে অবস্থান নেয়। এক পর্যায়ে দুই পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে গোসাইরহাট থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে লাঠিচার্য করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষের ঘটনায় সাইফুল রাড়ী (৩০), নজরুল ইসলাম রাড়ী (৩০), নিপা আক্তার (৩৫), আবুল কালাম সিকদার (২২), জাহানারা বেগম (২৫), পারভিন আক্তার (২৪),  পৌর কাউন্সিল সালাহ উদ্দিন উকিল সহ অন্তত ১০ জন আহত হয়। আহতদের গোসাইরহাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

গোসাইরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মোফাজ্জেল হোসেন বলেন, আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে শনিবার রাত থেকে দুই পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। এরই জের ধরে রোববার এক পক্ষ অপর পক্ষকে বাজারে ধাওয়া করে। খবর পেয়ে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এ ব্যাপারে এখনো কোন মামলা হয়নি।

You Might Also Like