লাশের পর লাশ পড়েলেও কর্মসূচি সফল করবে জামায়াত-শিবির

২০ দলীয় জোট ঘোষিত আগামীকাল ৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র হত্যা দিবসে সকল নিষেধাজ্ঞা ভেঙ্গেও মিছিল-সমাবেশ করতে প্রস্তুত জামায়াত-শিবির।

এ জন্য সব ধরণের প্রস্তুতিই নিয়ে রেখেছেন জোটের অন্যতম শরিক জামায়াতে ইসলামী ও তাদের ছাত্র সংগঠন ছাত্রশিবিরের নেতা-কর্মীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জামায়াতের ঢাকা মহানগরের এক নেতা জানান, সোমবার যদি লাশের পর লাশ পড়ে, তারপরও নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে কর্মসূচি সফল করা হবে। কোন শক্তিই জামায়াতকে আটকাতে পারবে না।

তিনি বলেন, এমনকি সরকার যদি ১৪৪ ধারাও জারি করে তা ভেঙ্গে মিছিল-সমাবেশ করার জন্য দলের হাইকমান্ডের নির্দেশ রয়েছে।

শিবিরের ঢাকা মহানগরীর এক থানা সভাপতি বলেন, ‘আমাদেরকে প্রস্তুত থাকতে বলা হয়েছে। তবে সময় এবং স্থান মোবাইলে জানিয়ে দেয়া হবে।’

এর আগে শনিবার শিবিরের সেক্রেটারি জেনারেল আতিকুর রহমান ঘোষণা দেন ৫ জানুয়ারি মাঠে থাকবে ছাত্রশিবির।

জামায়াতের কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরার সদস্য ড. রেজাউল করিম বলেছেন, ৫ জানুয়ারি আওয়ামী লীগের কবর রচনা হবে।

জামায়াতের একাধিক সুত্র নিশ্চিত করেছে, ৫ জানুয়ারি ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ পালনে গত প্রায় এক মাস ধরে প্রস্তুতি নিয়েছে দলটি। এ জন্য জামায়াত-শিবিরের কেন্দ্রীয় নেতারা অঞ্চলভিত্তিক সমন্বয়সভা করেছেন।

রাজধানীর ৪৮টি পয়েন্ট থেকে বিএনপির সঙ্গে একযোগে মিছিলসহ সমাবেশস্থলে হাজির হবেন তারা।

জমায়াতের আরেক নেতা বলেন, ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ কর্মসূচির মতোই খালেদা জিয়াকে সরকার অবরুদ্ধ করে রেখেছে। এ ধরনের ঘটনা ঘটবে তা অবগত ছিল বিএনপি জোট। তাই আন্দোলনের কিছু বিকল্প কৌশল খালেদা জিয়া আগেই নিয়ে রেখেছেন বলে আমরা জেনেছি। কিন্তু, সেটা কী তা জানি না।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমরা মার্চ ফর ডেমোক্রেসির পুনরাবৃত্তি চাই না। আমরা সরকারের সব ধরনের সিদ্ধান্ত মোকাবিলা করতে প্রস্তুত। কিন্তু বিএনপির দায়িত্বশীল নেতাদের এবার আগে মাঠে নামতে হবে।

এই নেতা এও বলেন, আজকে বিভিন্ন স্থানে বিএনপি এবং ছাত্রদলের ভূমিকায় আমরা আশান্বিত। আশা করছি ৫ জানুয়ারি বিএনপি সর্বশক্তি নিয়ে মাঠে নামবে।

You Might Also Like