রোহিঙ্গা ইস্যুকে পুঁজি করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছে: কাদের

বাংলাদেশে আশ্রিত রোহিঙ্গা শরণার্থীদের সংকট নিয়ে অপতৎপরতা চলছে বলে অভিযোগ করেছেন সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

আজ (শনিবার) সকালে নোয়াখালীর বসুরহাটে অসুস্থ ও অসহায় ব্যক্তি এবং বিভিন্ন মসজিদ-মাদ্রাসার জন্য সরকারী অনুদানের চেক হস্তান্তর শেষে মন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, কোনো ধরনের উসকানিতে সরকার প্ররোচিত হবে না।

ওবায়দুল কাদের আরও বলেন, ‘জাতিসংঘের চলমান অধিবেশনে রোহিঙ্গা বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া বক্তব্য বিশ্ব গণমাধ্যম এবং বিশ্বনেতাদের কাছে প্রশংসিত হয়েছে। তবে আমাদের দেশের একটি দলের কাছে সেটি পছন্দ হয়নি। কারণ, তারা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্য ঠিকমতো শোনেনি অথবা বক্তব্য বোঝার ক্ষমতা তাদের নেই।’

কোনো দলের নাম উল্লেখ না করে কাদের বলেন, তাদের হাতে মূলত কোনো ইস্যু নেই। তাই রোহিঙ্গা ইস্যুকে পুঁজি করে ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের চেষ্টা করছে। তাদের এই অপতৎপরতা সফল হবে না।

‘রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতীয় ঐক্য হয়ে গেছে’

এর আগে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য এবং সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যার মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে জাতীয় ঐক্য হয়ে গেছে, নতুন করে ঐক্যের দরকার নেই।

গতকাল শুক্রবার রাজধানীর সোনারগাঁ হোটেলে বাংলাদেশে সোসাইটি অফ আলট্রাসনোগ্রাফির (বিএসইউ) ২৯তম জাতীয় সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

বিএনপি নেতাদের জাতীয় ঐক্যের আহ্বানের জবাবে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, “সকল দলের নেতারা সেখানে ত্রাণ নিয়ে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে সাড়া দিয়ে দেশে ও বিদেশের মানুষ আজ রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়িয়েছে। সমগ্র বিশ্ব বাংলাদেশ সরকারের পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছে। তাহলে ঐক্যের আর কি বাকি আছে?’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী দৃঢ়তার সাথে বলেন, অবিলম্বে রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরিয়ে নিতে হবে। এক্ষেত্রে মিয়ানমারের কোনও অপযুক্তি মেনে নেয়া হবে না। রোহিঙ্গাদের ফেরিয়ে নিতে বিশ্ববাসীকে মিয়ানমারের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে হবে।

‘রোহিঙ্গাদের কাছে সিমকার্ড বিক্রি করা যাবে না’

এদিকে, বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের কাছে মোবাইল ফোনের সিমকার্ড বিক্রি করা যাবে না বলে আজ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তবে যোগাযোগের জন্য আগামী তিন দিনের মধ্যে কক্সবাজারের সব রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবিরে সরকারি মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটকের ফোন বুথ স্থাপন করা হবে। এসব বুথ থেকে খুব কম খরচে মোবাইল ফোন দিয়ে স্থানীয় (লোকাল) কল করতে পারবেন আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গারা।

এ প্রসঙ্গে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেন, কিছু ব্যক্তি বাড়তি আয়ের লোভে নিজের নামে নিবন্ধিত সিমটি রোহিঙ্গাদের কাছে হস্তান্তর করছে। এটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। কোনো অপারেটর বা খুচরা বিক্রেতা যদি এ ক্ষেত্রে অসাধু উপায় অবলম্বন করে, তাহলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ জন্য আগামী কয়েক দিনের মধ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালত দিয়ে শরণার্থী শিবিরগুলোয় অভিযান চালানো হবে।

You Might Also Like