রাতে জনগণের চলাচলের নিষেধাজ্ঞা আর থাকছে না

কোভিড-১৯ সংক্রমণ পরিস্থিতির মধ্যেই পুরোদমে অফিস চালুর পর রাতেরবেলা জনগণের চলাচলের ক্ষেত্রে এতদিন যে নিষেধাজ্ঞা ছিল, সেটিও আর থাকছে না।

করোনাভাইরাস মহামারীতে জনগণের সার্বিক কার্যাবলি/চলাচল নিয়ে সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ যে আদেশ জারি করেছে, সেখানে রাতে চলাচলের ক্ষেত্রে কোনো বিধিনিষেধের কথা বলা হয়নি।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলছেন, যেহেতু বিধিনিষেধের বিষয়ে কিছু বলা হয়নি কিংবা বিধিনিষেধ বাড়ানোর কথা বলা হয়নি, তাই রাতেরবেলা চলাচলে আর বাধা নেই। তবে সরকারের সংশ্লিষ্ট কোনো মন্ত্রণালয় কিংবা বিভাগ যদি মনে করে, তা হলে সরকারের উচ্চপর্যায়ে যোগাযোগ করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারবে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের গত ৩ আগস্টের আদেশে বলা হয়েছিল– রাত ১০টা থেকে সকাল ৫টা পর্যন্ত অতিজরুরি প্রয়োজন ব্যতীত (প্রয়োজনীয় ক্রয়-বিক্রয়, কর্মস্থলে যাতায়াত, ওষুধ কেনা, চিকিৎসাসেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার) বাড়ির বাইরে আসা যাবে না। যদি কেউ এ নির্দেশনা না মানে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। এই আদেশের মেয়াদ সোমবার শেষ হয়েছে।
গত ৩ থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত হাটবাজার, দোকানপাট ও শপিংমল খোলা রাখার সময় রাত ৮টা পর্যন্ত করা হয়। সোমবারের নতুন আদেশে হাটবাজার ও দোকান খোলা রাখার সময় নিয়ে কিছু বলা হয়নি।

এ বিষয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের জেলা ও মাঠ প্রশাসন অনুবিভাগের অতিরিক্ত সচিব শেখ রফিকুল ইসলাম বলেন, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ বলেছে– প্রত্যেক মন্ত্রণালয় স্ব স্ব বিবেচনায় নিজেরা এসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। আমরা শুধু কমন কিছু নির্দেশনা দিয়েছি। রাতে চলাচলের ওপর কোনো বিধিনিষেধ রাখা হবে কিনা, তা মন্ত্রণালয়গুলো সিদ্ধান্ত নেবে।

অতিরিক্ত সচিব রফিকুল বলেন, প্রত্যেক মন্ত্রণালয়কে আলাদা আলাদাভাবে নির্দেশনা দেয়া হয়নি। তবে কোনো মন্ত্রণালয় বা বিভাগ প্রয়োজন মনে করলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে ফোন করে বা লিখিতভাবে পরামর্শ নিতে পারবে।

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ২৬ মার্চ থেকে চলা টানা ৬৬ দিনের লকডাউন ওঠার পর গত ৩০ মে থেকে অফিস চলছে। প্রথম দিকে ২৫ শতাংশ কর্মকর্তা-কর্মচারী নিয়ে অফিস চললেও এখন সবাইকে অফিস করতে হচ্ছে। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে অফিস করতে হচ্ছে।

গত ৩ থেকে ৩১ আগস্ট পর্যন্ত হাটবাজার, দোকানপাট ও শপিংমল খোলা রাখার সময় রাত ৮টা পর্যন্ত করা হয়। সোমবারের নতুন আদেশে হাটবাজার ও দোকান খোলা রাখার সময় নিয়ে কিছু বলা হয়নি।

তবে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা এ বিষয়ে বলেন, করোনাভাইরাস শুরুর আগে রাত ৮টার মধ্যেই দোকানপাট বন্ধ করতে হতো। যেহেতু আগের আদেশই বহাল আছে, তাই নতুন করে এ বিষয়ে কিছু বলা হয়নি।

দেশে ৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। ১৮ মার্চ প্রথম মৃত্যু হয় করোনাভাইরাসে। স্বাস্থ্য অধিদফতর করোনা থেকে বাঁচতে কঠোর স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে সর্বদা সতর্ক করে আসছে। এরই মধ্যে যানবাহনে সিট ফাঁকা রেখে যাত্রী পরিবহন উঠে গেছে। রেল চলাচল শুরু হচ্ছে পুরোদমে।

You Might Also Like