রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে কয়েদির আত্মহত্যা

রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারে জনি (২১) নামের এক কয়েদী আত্মহত্যা করেছেন। চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে মারা যান তিনি। এর আধাঘন্টা আগে কারাগারের ভিতরে গলায় গামছা পেঁচিয়ে ফাঁস দেন তিনি। পরে কারাকর্তৃপক্ষ তাকে উদ্ধার করে দ্রুত রামেক হাসপাতালে নেয়।

নিহত জনী নগরীর বুলনপুর ঘোষপাড়া এলাকার মুক্তার আলী ভুট্টুর ছেলে। গত ২৭ জুুন রাজপাড়া থানায় দায়েরকৃত একটি চুরি মামলার (৪৮ নম্বর) আসামি ছিলেন তিনি। ওই মামলায় পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে শনিবার বিকেলে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠায়।

রাজশাহী কেন্দ্রীয় কারাগারের জেলার শাহাদাত হোসেন জানান, জনি মহানন্দ ওয়ার্ডের ৪ নম্বর কক্ষের কয়েদি ছিলেন। ভোরে পস্রাব করার কথা বলে বাইরে বেরিয়ে জাম্বুরা গাছের ডালের সঙ্গে গলায় গামছা পেঁচিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। পরে তাকে পরে হাসপাতালে নেয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, তার পকেট থেকে স্ত্রীর দেয়া তালাক নামার কপি উদ্ধার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে স্ত্রী তালাক দেয়ায় তিনি আত্মহত্যা করেছেন। এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থাগ্রহণ প্রক্রিয়াধীন বলে জানান জেলার।

You Might Also Like