রাঙামাটিতে সেনা অভিযান: ‘আরাকান আর্মি’র পোশাকসহ যুবক আটক

রাঙামাটির রাজস্থলী উপজেলায় মিয়ানমারের সশস্ত্র বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন ‘আরাকান আর্মি’র সন্দেহভাজন সদস্য রেনাইজু মার্মার বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে হাতকাটা এক যুবককে আটক করেছে সেনাবাহিনী। তিনি মিয়ানমারের নাগরিক ও বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসী গোষ্ঠী আরাকান আর্মির সহযোগী বলে জানা গেছে।

সেনাবাহিনীর রাঙামাটি রিজিওনের জিটুআই মেজর তসলিম তারেক জানান, আটক ব্যক্তির নাম অং নং ইয়ং রাখাইন (২৫)। আটকের পর তাঁর কাছ থেকে মিয়ানমার আর্মির পোশাকের ৩০ গজ কাপড়, আর্মির তিন সেট পোশাক, তিনটি ল্যাপটপ, দুটি ডিজিটাল ক্যামেরা, একটি হ্যান্ডিক্যাম, একটি মোবাইল, একটি মডেম, তাঁর স্ত্রীর পাসপোর্ট, দুটি ঘোড়া ও তিনটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়েছে।

রাজস্থলীর স্থানীয় সাংবাদিকরা জানিয়েছেন, আটক ব্যক্তি এখন রাজস্থলী থানায় আছেন। তাকে কোথায় নেয়া হবে, সে সম্পর্কে এখনো কোনো ধারণা দেয়নি যৌথ বাহিনী।

রাজস্থলী উপজেলার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো. অহিদুল্লাহ জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এবং উপজেলাসহ বিভিন্ন এলাকায় বিদেশী ঘোড়া আনা-নেয়ার বিষয়ে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে বুধবার রাতে তাইতংপাড়া কলেজ রোড এলাকায় রেনাইজু মার্মার বাসায় সেনাবাহিনী অভিযান চালায়। অভিযানকালে ১০টি বিদেশী ঘোড়া, আরাকান বাহিনীর তিনসেট পোশাক, তিনটি ল্যাপটপ, দুটি ক্যামেরাসহ মূল্যবান কাগজপত্র উদ্ধার করা হয়। তবে রেনাইজু মার্মাকে সেখানে পাওয়া যায়নি।

তিনি আরও বলেন, উদ্ধার হওয়া ঘোড়াগুলোর সাথে বান্দরবানসহ সীমান্তবর্তী এলাকা থেকে পাকড়াও করা ঘোড়াগুলোর মিল রয়েছে। ওসি বলেন, ধারণা করা হচ্ছে আটক যুবককে অপহরণ করা হয়েছে। রেনাইজু মার্মাকে আটক করা গেলে সব তথ্য বেরিয়ে আসবে বলে জানান তিনি।

অভিযানকালে কাপ্তাই ১১ ব্যাটালিয়নের জোন কমান্ডার লে. কর্নেল আবদুল্লাহেল সাফি, রাজস্থলী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা সুজন চৌধুরী, রাজস্থলী উপজেলার অফিসার ইনচার্জ মো. অহিদুল্লাহসহ বিজিবি, সেনাবাহিনী ও পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে বুধবার সকালে বান্দরবানের থানচির দুর্গম পাহাড়ি এলাকায় বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) সীমান্তচৌকি (বিওপি) ও টহল দলের ওপর গুলি ছুড়েছে মিয়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী আরাকান আর্মি। মিয়ানমার সীমান্তবর্তী থানচির বড় মদক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এতে বিজিবির দুই সদস্য গুলিবিদ্ধ হন। হামলার পর থানচি সীমান্তে বিজিবি ও সেনা বাহিনী যৌথ অভিযান চালায়।

You Might Also Like