রহস্যঘেরা বস্তুটি ফ্লাইংসসার?

মিয়ানমারের পাহাড়বেষ্টিত প্রত্যন্ত অঞ্চল জেন মাইন। তার ভেতরে ক্ষুদ্র গ্রাম লোন খিনে ভোরে আকাশ থেকে নেমে এল অদ্ভুত অচেনা এক বস্তু। বিকট শব্দে বস্তুটি পড়ার সঙ্গে সঙ্গে গ্রামবাসী ঘুম থেকে উঠে পড়ে।

আহত হওয়ার কোনো খবর পাওয়া না গেলেও সেই বস্তুটিকে ঘিরে শুরু হয় রহস্য।

কেউ বলছেন, এটা ফ্লাইংসসার। কেউ বলছেন মহাকাশ যান বা রকেটের ভগ্নাংশ। গত এক সপ্তাহে এ রহস্যের সন্ধান মেলেনি। বিজ্ঞানীরা একে আনআইডেন্টিফাইড ফ্লাইং অবজেক্ট হিসেবে চিহ্নিত করেছেন।

ওই গ্রামের ডমে কাইয়ি নামে এক ব্যক্তি গণমাধ্যমকে বলেন, এটি পড়ার পর আমাদের বাড়ি কেঁপে উঠেছে। প্রথমে ভেবেছিলাম বোমা পড়েছে। আমি তামার তার দেখেছি। বস্তুটির লেজের দিকে এমনটাই দেখা গেছে, যা অনেকটা জেট ইঞ্জিন ব্লকের মতো দেখতে। লম্বায় ১২ ফুট।

সরকারি কর্মকর্তারা বলেছেন, আমরা এখনো বস্তুটি চিহ্নিত করতে পারিনি। তবে বিশেষজ্ঞরা এটা নিয়ে গবেষণা করছেন। ফেসবুকে এর ছবি প্রচার করা হয়েছে। এটা অনেকটা ইউএফওর মতো। কিংবা কোনো বাণিজ্যিক বিমানের অংশ।

সরকারি কর্মকর্তারা বলছেন, ৯ নভেম্বর চীন রকেট ১১ উৎক্ষেপণ করেছিল। ৫৩০ পাউন্ড ওজনের মহাকাশযানটিতে স্যাটেলাইটের অনেক অংশ থাকে, যা অপ্রয়োজনীয় এবং এগুলো বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এসব বিচ্ছিন্ন অংশের কোনোটি হতে পারে এটি।

তবে বিশেষজ্ঞরা ধারণা করছেন, মহাকাশে ৫০ হাজার যান্ত্রিক বর্জ্য পৃথিবীকে কেন্দ্র করে ঘুরছে। এই বস্তুটি এসব বর্জ্যেরও অংশ হতে পারে।

You Might Also Like