রটনা এবং ঘটনায় শাকিবের সতেরো

২০১৭ সালে দেশের চলচ্চিত্রে বেশকিছু আলোচিত-সমালোচিত ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে শাকিব খানকে কেন্দ্র করেই ঘটেছে বেশ কিছু ঘটনা। বলা যায় বছরজুড়েই ফিল্ম পাড়ায় এই নায়ক আলোচিত এবং সমালোচিত হয়েছেন। তবে তাকে নিয়ে অঘটন বা বিতর্কিত ঘটনাই বেশি লক্ষ্য করা গেছে। শাকিব খানের আলোচিত-সমালোচিত ঘটনা নিয়ে এই প্রতিবেদন।

‘ফ্যামিলি টাইম’ দিয়ে শুরু: চলতি বছরের ১৯ মার্চ চিত্রনায়িকা বুবলি ফেসবুকে শাকিব খানের সঙ্গে একটি ছবি পোস্ট করেন। ছবিতে তার পরিবারের লোকজনও ছিল। এই ছবির ক্যাপশনে তিনি লিখেছিলেন: ‘ফ্যামিলি টাইম’। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বুবলিকে ফোন করে কটু কথা বলেন অপু বিশ্বাস। তখনও শাকিব-অপুর বিয়ের বিষয়টি সবার অজানা। ফলে অনেকের মনে সন্দেহ দানা বাঁধতে থাকে। বিভিন্ন সময় শাকিব-বুবলির প্রেমের গুঞ্জনও ওঠে সংবাদমাধ্যমে। বলা যায়, শাকিব-অপু ও বুবলির দ্বন্দ্বের শুরু এখান থেকেই। যার শেষ নতুন বছরেও হবে কিনা কেউ জানে না।

হঠাৎ সন্তানসহ হাজির অপু: গত ১০ এপ্রিল সংবাদমাধ্যমে অপু বিশ্বাস সন্তান আব্রাহাম খান জয়কে নিয়ে হাজির হন। তখন তিনি কান্নাজড়িত কণ্ঠে জানান- শাকিবের সঙ্গে ২০০৮ সালের ১৮ এপ্রিল তার বিয়ে হয়েছে। তাদের ছেলের জন্ম হয় ভারতের কলকাতার একটি হাসপাতালে ২০১৬ সালের ২৭ সেপ্টেম্বর। এই জুটির বিয়ে ও সন্তানের খবর প্রকাশের পর ঝড় ওঠে সংবাদমাধ্যমে। বিশেষ করে এ ঘটনার পর শাকিব খান সন্তান আব্রাহাম খান জয়কে মেনে নিলেও স্ত্রী হিসেবে অপুকে মেনে নেবেন না বলে জানান। এমনকি তাৎক্ষণিক বক্তব্যে তিনি বলেন, অপুকে তিনি বিয়েই করেননি! যদিও এই বক্তব্য পরে তিনি ফিরিয়ে নেন। কিন্তু শাকিব ভীষণভাবে সমালোচিত হন এই ঘটনায়। নায়ক থেকে তিনি মুহূর্তেই পরিণত হন ভিলেনে।

‘সুপারস্টার’ বলায় সমালোচনা: অ্যানালগ যুগে নায়ক-নায়িকার নামের সঙ্গে ‘সুপারস্টার’ তকমা যুক্ত হওয়া ছিলো ভাগ্যের ব্যাপার। কিন্তু নেট দুনিয়ায় শব্দটি অতি পরিচিত। এখন যত্রতত্র শব্দটি ব্যবহার করা হচ্ছে। বিয়ে প্রসঙ্গে শাকিব খান টেলিভিশন চ্যানেলে সাক্ষাৎকার দেন। সেখানে তিনি নিজেকে ‘সুপারস্টার’ বলে একাধিকবার দাবি করেন। এ নিয়ে চলচ্চিত্র অঙ্গনসহ সোশ্যাল মিডিয়ায় তিনি ভীষণ সমালোচনার মুখে পড়েন। বিষয়টি নিয়ে তখন মুখ খুলতে বাধ্য হন চিত্রনায়ক ওমর সানি ও খল অভিনেতা মিশা সওদাগরসহ অনেকেই।

শাকিবের ওপর হামলা ও অবাঞ্ছিত ঘোষণা: বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন গত ৫ মে অনুষ্ঠিত হয়। মধ্যরাতে শাকিব খান ভোটকেন্দ্রে প্রবেশ করলে তিনি হামলার শিকার হন। এক পর্যায় তাকে বিএফডিসি থেকে বের করে দেয়া হয়। এমন ঘটনায় পরবর্তী সময়ে অনেকেই দুঃখ প্রকাশ করেছেন। ঘটনার এখানেই শেষ নয়। চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতিকে ‘বেকার’ বলায় শাকিব খাননে নোটিশ পাঠায় এবং বয়কট করে পরিচালক সমিতি। সর্বশেষ শাকিব খান পরিচালক সমিতিতে এসে ক্ষমা চাইলে বয়কট তুলে নেয়া হয়। কিন্তু এর রেশ না কাটতেই ‘মিয়া ভাই’খ্যাত চিত্রনায়ক ফারুককে নিয়ে অশোভন মন্তব্য করেন শাকিব খান। ফলে তাকে আজীবনের জন্য নিষিদ্ধ করে চলচ্চিত্র ঐক্যজোট। এ ঘটনার পর শাকিব খান ফারুকের বাসায় গিয়ে ক্ষমা চান। তার উপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হয়।

আব্রাহামকে নিয়ে: গত ১৬ নভেম্বর শেষ রাতে বাথরুমে পা পিছলে পড়ে যান অপু বিশ্বাস। এ ঘটনায় সিজারের সময় করা সেলাই ফেটে যায়। প্রাথমিকভাবে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নেন অপু। এরপর উন্নত চিকিৎসার জন্য তিনি কলকাতা যান। পুত্র জয়কে তিনি রেখে যান ঢাকার বাসায়। এদিকে শাকিব খান জয়কে দেখতে বাসায় গিয়েও না দেখে ফিরে আসেন। এর কারণ হিসেবে তিনি মিডিয়ায় বলেন, বাসা বাইরে থেকে তালা দেয়া ছিল। তিনি প্রশ্ন তোলেন, একটি বাচ্চাকে বাসায় তালা দিয়ে আটকে রাখা কতটা যুক্তিসঙ্গত? যদিও তার এই প্রশ্ন হালে পানি পায়নি। কারণ অপু বিষয়টিকে মিথ্যা বলে উড়িয়ে দিয়ে বলেন, বাসায় তার বোন ছিল। জয় তার কাছেই ছিল। তাছাড়া কলিং বেল বাজালেই ভেতর থেকে এসে তারা দরজা খুলে দিতো। এ বিষয়টি নিয়েও আলোচনা-সমালোচনা কম হয়নি।

অবশেষে ডিভোর্স: যাই হোক, অপুর বিয়ের খবর প্রকাশ করে দেয়া যে শাকিব ভালোভাবে নেননি তা তার আচরণ, বছরজুড়ে বিভিন্ন মন্তব্য থেকে বোঝা গেছে। অনেকেই তখন বলেছেন- এই বিয়ে টিকবে না। কারণ জোর করে ভালোবাসা হয় না। অথচ তারা প্রেম করেই বিয়ে করেছিলেন!

গত ৪ ডিসেম্বর শাকিব খান অপুর কাছে ডিভোর্স লেটার পাঠিয়ে নতুন করে আলোচনার জন্ম দেন। এই বিষয়েও তাকে সমালোচনার মুখে পড়তে হয়। বছরজুড়েই ভাঙনের সুর বেজেছে শাকিব খান ও অপু বিশ্বাসের সংসারে। যদিও এই তারকা দম্পতির বিচ্ছেদ এখনও হয়নি, তবে সেটা এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র।

You Might Also Like