যৌন কেলেঙ্কারি : পরিস্থিতির স্বীকার শ্বেতা!

যৌন কেলেঙ্কারির দায়ে গ্রেফতারকৃত শ্বেতা বসু প্রসাদ সম্প্রতি মুখ খুললেন। শ্বেতা গ্রেফতার হয়ার পর ভারতীয় গণমাধ্যমে বেশকিছু খবর প্রকাশ হয়। একাধিক গণমাধ্যম শ্বেতার বক্তব্যও প্রকাশ করে। কিন্তু জেলে থেকে ছাড়া পাওয়ার পর শ্বেতা এসব কিছুই অস্বীকার করছেন। শুধু তাই নয়, হোটেল থেকে অপ্রস্তুত অবস্থায় শ্বেতাকে গ্রেফতার করা হলেও এই অভিনেত্রী জানালেন তিনি কেবলই পরিস্থিতির স্বীকার।

শ্বেতা দাবি করছেন, তিনি কোনো গণমাধ্যমের সঙ্গেই কথা বলেননি। সম্প্রতি পুনর্বাসন কেন্দ্র থেকে বাড়ি ফিরেছেন শ্বেতা। এর পরই একটি ভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শ্বেতা জানান, তাকে নিয়ে সংবাদকর্মীরা অনেক বানানো কথা লিখেছেন।

শ্বেতা বলেন, ‘আমি যখন পুলিশ হেফাজতে ছিলাম তখন আমাকে টিভি দেখা কিংবা পত্রিকা পড়ার কোনো সুযোগ দেওয়া হতো না। আমাকে নিয়ে মিডিয়ার সার্কাস বাড়ি ফিরে দেখতে পেয়েছি। মিডিয়ার উচিত ছিল আমার জন্য অপেক্ষা করা। এর পর তারা বিচার করত আমি দোষী কি-না।

গ্রেফতার হওয়া প্রসঙ্গে শ্বেতা বলেন, ‘হায়দরাবাদে আমি কোনো সেক্স এজেন্টের কথাতে যাইনি। আমি সেখানে একটি অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে গিয়েছিলাম। পরদিন আমার বিমানের ফ্লাইট ধরতে ব্যর্থ হই। সেই অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানের আয়োজকরাই আমাকে বিমানের টিকিটের ব্যবস্থা করেছিল। আমার থাকার ব্যবস্থাও তারাই করেছিল। আমি শুধু পরিস্থিতির শিকার মাত্র। মামলার তদন্ত এখনও চলছে। আমি রেইডের কথা অস্বীকার করছি না। কিন্তু আমাকে নিয়ে যে খবর প্রকাশিত হয়েছে, তা সত্য নয়।

শ্বেতা আরও বলেন, ‘আমি যখন পুনর্বাসনকেন্দ্রে ছিলাম তখন আমার দাদা মারা যান। আমি তার জীবনের শেষ সময় পর্যন্ত উপস্থিত থাকতে পারিনি। বিষয়টি আজীবন আমাকে তাড়া করে বেড়াবে। আপনারা যেভাবে আমাকে উপস্থাপন করেছেন, শেষ মুহূর্তে তিনি আমার সম্পর্কে সে ধারণা নিয়েই চলে গেলেন।

তিনি আরও বলেন, আমার মা দিনের পর দিন আদালতে দৌড়াদৌড়ি করেছেন। আমাকে একবারের জন্যও তার সঙ্গে মোবাইল ফোনে কথা বলতে দেওয়া হয়নি। পরের সপ্তাহে একবার মাত্র ফোনে কথা বলার সুযোগ পেয়েছি। সে সময় তিনি শুধুই কাঁদতেন।

ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা প্রসঙ্গে শ্বেতা বলেন, ‘আমি একজন অভিনেত্রী আছি ও থাকব। এখন আমি আমার হিন্দুস্তান ক্ল্যাসিক সঙ্গীতের ওপর একটি তথ্যচিত্র তৈরি করছি। আমার জীবনের যে জায়গা থেকে আমি থেমেছিলাম, সেই জায়গা থেকেই আবার শুরু করব।’

You Might Also Like