যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর জন্য রাশিয়ার পারমাণবিক চমক

যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর সাথে লড়াই করতে রাশিয়া ব্যপক পারমাণবিক অস্ত্র মজুদ করেছে। সাম্প্রতি রাশিয়ান সংবাদমাধ্যম প্রাভদা একটি নিবন্ধে এ তথ্য প্রকাশ করেছে যার শিরোনাম ‘ন্যাটোর জন্য পারমাণবিক চমকের প্রস্তুতি নিচ্ছে রাশিয়া’।

গত ১ সেপ্টেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্ট কর্তৃক প্রকাশ করা এক রিপোর্টকে উদ্ধৃত করে সংবাদমাধ্যমটি নিবন্ধটি প্রকাশ করে।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ১ সেপ্টেম্বরের ঐ রিপোর্টে বলা হয়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়া কৌশলগত পরমাণু অস্ত্র মজুদের প্রেক্ষিতে সমতায় পৌঁছেছে।
যদিও নিবন্ধে স্পষ্টভাবে ন্যাটো বা মার্কিনিদের বিরুদ্ধে হুমকির বিষয়টি প্রকাশ পায়নি।

প্রবন্ধটি একটি পরিষ্কার বার্তা দিচ্ছে যে, রাশিয়ান পারমাণবিক অস্ত্র ক্রমবর্ধমানভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং বর্তমানে তারা যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সমতার পর্যায়ে অবস্থান করছে।

এটা নিঃসন্দেহে বলা যায় যে, যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় রাশিয়ান কৌশলগত পারমাণবিক শক্তি (এসএনএফ) অনেক বেশি উন্নত। অতি সামান্য সংখ্যক কৌশলগত পরমাণু অস্ত্র থেকে রাশিয়া এখন পারমাণবিক অস্ত্র মজুদের দিক দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে সমতা নিশ্চিত করেছে।

ভবিষ্যতে রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে এই ব্যবধান আরো বৃদ্ধি পেতে পারে।

এর আগে রাশিয়ান প্রতিরক্ষা কর্মকর্তারা অঙ্গীকার করেছিলেন যে, রাশিয়ার এসএনএফ’কে নতুন প্রজন্মের ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে পুনরায় সুসজ্জিত করা হবে।

মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সেপ্টেম্বরের প্রতিবেদনকে অনুসরণ করে মার্কিন অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ ব্যুরো অক্টোবরে দুই দেশের অস্ত্র মজুদের নতুন একটি তথ্য প্রকাশ করেছে যা প্রাভদার দাবির প্রতিধ্বনি।

যুক্তরাষ্ট্র আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিবিএম) ও ভারী বোমা মজুদে রাশিয়ার তুলনায় এগিয়ে রয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ভারী বোমার সংখ্যা ৭৬৪ টি এবং রাশিয়ার ৫২৮টি।

তবে যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়া পারমাণবিক অস্ত্র মজুদের দিক দিয়ে যথাযথ সমতা অর্জন করেছে। সংখ্যাটি প্রায় অভিন্ন: যুক্তরাষ্ট্রের ১,৬৪২ টি এবং রাশিয়ার ১,৬৪৩ টি।

২০১১১ সালের ফেব্র“য়ারী থেকে যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়া উভয় দেশই তাদের কৌশলগত পরমাণু অস্ত্রের সংখ্যা বৃদ্ধি করতে থাকে।

তবে রাশিয়া যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় উল্লেখযোগ্য গতিতে পরমাণু অস্ত্রের সংখ্যা বৃদ্ধি করেছে। অক্টোবরের হিসাবে ২০১১ সাল থেকে রাশিয়া অতিরিক্ত ১৩১টি অস্ত্র মজুদ করেছে।

২০১১ সালে নিউ স্ট্রাট নামে একটি চুক্তি স্বাক্ষর সত্ত্বেও পারমাণবিক অস্ত্র মজুদের এই বৃদ্ধির ঘটনা থেমে থাকেনি।
চুক্তি অনুযায়ী, উভয় প্ল্যাটফর্মের মজুদকৃত মোট ১,৫৫০ টি পারমাণবিক অস্ত্রের সাথে উভয় পক্ষই আইসিবিএমএস, সাবমেরিন ব্যালিস্টিক মিসাইল (এসএলবিএম) এবং ভারী বোম্বার ৭০০ এর মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখতে একমত হয়।

বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়া উভয়েই চুক্তির শর্ত লংঘন করে আরো অধিক সংখ্যায় পরমাণু অস্ত্র মজুদ করছে। নতুন অস্ত্রের সংখ্যা বৃদ্ধিসহ মস্কোর পরমাণু ক্ষমতা যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটোর জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে।
উদাহরণস্বরূপ গত মার্চে রাশিয়ার বিশিষ্ট একটি সম্প্রচারমাধ্যম সতর্ক করে দেন যে, রাশিয়া ইচ্ছা করলে যুক্তরাষ্ট্রকে ‘তেজস্ক্রিয় ধূলোয়’ পরিণত করতে পারে।

এছাড়াও গত মার্চ থেকে রাশিয়া ক্রমবর্ধমান পশ্চিমের দিকে একটি মারমুখো অবস্থান নিয়েছে। এরপর থেকেই রাশিয়ার সঙ্গে ন্যাটো ও তার প্রতিবেশী সেনাবাহিনীর প্রায় ৪০ টি ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে রয়েছে ছদ্মবেশে একটি সশস্ত্র জঙ্গী বিমান দ্বারা জনবহুল ডেনিশ দ্বীপে হামলা।

You Might Also Like