যুক্তরাষ্ট্র অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া প্রতিশ্রুতির বাস্তবায়ন চায়

বাংলাদেশে অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত মার্শা স্টিফেন ব্লুম বার্নিকাট। বুধবার ঢাকায় ইএমকে সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ আহ্বান জানান।
আফ্রিকান-আমেরিকান তথা কৃষ্ণাঙ্গদের অধিকারের বিষয়ে ঐতিহাসিক মাস পালন উপলক্ষে আয়োজিত এক অনুষ্ঠান শেষে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।
সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বার্নিকাট বলেন, বাংলাদেশে আগামী নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু, বিশ্বাসযোগ্য ও সবার অংশগ্রহণ দেখতে চায় যুক্তরাষ্ট্র। দেশটি কোনো রাজনৈতিক দলকে নয়, সুষ্ঠু নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে সমর্থন করে।
তিনি বলেন, নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক প্রচার এখনো শুরু হয়নি। তবে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি উভয় দলই গত তিন বছর ধরে অনানুষ্ঠানিকভাবে ভোটের প্রচার চালাচ্ছে। এগুলো আনুষ্ঠানিক নির্বাচনী প্রচার নয়।
মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচন মানে শুধু ভোটের দিনে সুষ্ঠু পরিবেশ নয়। ভোটের আগে সবার অবাধে সমাবেশ করার সুযোগ থাকাও মৌলিক বিষয়। কেননা এটার প্রভাব নির্বাচনে পড়ে।
তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৬ সালে আওয়ামী লীগের এক অনুষ্ঠানে বলেছিলেন, আগামী নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে। আমি প্রধানমন্ত্রীর ওই প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের আহ্বান জানাই যাতে আগামী নির্বাচন নিয়ে কোনো প্রশ্ন না থাকে।’
বার্নিকাট বলেন, তারা আওয়ামী লীগ ও বিএনপিসহ সব দলের সঙ্গে নির্বাচনের পরিবেশ নিয়ে আলাপ-আলোচনা করছেন। নির্বাচন কমিশনের সঙ্গেও আলোচনা হচ্ছে।
আগামী নির্বাচনে যুক্তরাষ্ট্রের ভূমিকা নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমাদের বার্তা হলো, আমরা কোনো রাজনৈতিক দলের পক্ষে যাব না। আমরা সুষ্ঠু নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে সমর্থন করি। আমরা জনগণকে সমর্থন করি।’
মার্কিন রাষ্ট্রদূত বলেন, ‘আমাকে একজন জিজ্ঞাসা করেছিলেন- গণতন্ত্র না উন্নয়ন কোনটাকে সমর্থন করেন? আমার বক্তব্য হলো- গণতন্ত্র ও উন্নয়ন উভয়টাই একসঙ্গে প্রয়োজন।’
বিএনপির সাম্প্রতিক শান্তিপূর্ণ কর্মসূচি পালনের প্রতি ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ বিক্ষোভ পালন অবশ্যই প্রশংসার দাবি রাখে।
এসময় বার্নিকাট বলেন, আইএসআইএস বাংলাদেশ নামের একটি গ্রুপকে যুক্তরাষ্ট্র সন্ত্রাসী সংগঠনের তালিকাভুক্ত করেছে। এতে করে যুক্তরাষ্ট্রের আইনে সন্ত্রাসীদের চিহ্নিত করে তাদের বিচার করা সম্ভব হবে।
এদিকে মার্কিন প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ণ নিরাপত্তা কর্মকর্তা লিসা কার্টিস শুক্রবার বাংলাদেশ সফরে আসছেন। সফরকালে তিনি কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শনে যাবেন বলে জানান বার্নিকাট।

You Might Also Like