হোম » ‘যুক্তরাষ্ট্রকে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের পথে ঠেলে দিচ্ছেন ট্রাম্প’

‘যুক্তরাষ্ট্রকে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের পথে ঠেলে দিচ্ছেন ট্রাম্প’

ঢাকা অফিস- Monday, October 9th, 2017

রিপাবলিকান মার্কিন সিনেটর বব করকার বলেছেন, যু্ক্তরাষ্ট্রকে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের পথে ঠেলে দিচ্ছেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

প্রভাবশালী এই সিনেটর রোববার নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এমন হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন।

ধারাবাহিক টুইটে ইরানের সঙ্গে পরমাণু ‍চুক্তি করার জন্য করকারসহ প্রাক্তন রাজনৈতিক মিত্রদের ওপর দোষারোপ করেছেন ট্রাম্প। এ ছাড়া নানা কারণে দুজনের মধ্যে দূরত্ব তৈরি হয়েছে।

অন্যদিকে, এসবের বিরুদ্ধে টুইট করেছেন করকার। সিনেটের বৈদেশিক সম্পর্কবিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান তিনি।

২৫ মিনিটের সাক্ষাৎকারে করকার বলেছেন, এই প্রেসিডেন্টকে নিয়ে শঙ্কিত তিনি। কারণ প্রেসিডেন্ট এমনভাবে কাজ করছেন, যেন তিনি ‘দি অ্যাপ্রেন্টিস’ (শিক্ষানবীশ) বা এমন কিছু। উল্লেখ্য, ট্রাম্প এক সময় দি অ্যাপ্রেন্টিস নামে টেলিভিশনে রিয়েলিটি শো করেছিলেন।

সিনেটর করকার আরো বলেন, ‘তিনি আমাকে উদ্বিগ্ন করেছেন। যারা আমাদের দেশ নিয়ে ভাবেন, তাদের সবাইকে তিনি উদ্বেগে ফেলতে পারেন।’ গত মাসে সিনেটরের পদ থেকে অবসরে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন করকার।

অভিযোগ রয়েছে, উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে উসকানিমূলক কথা বলে দেশটিকে ক্ষেপিয়ে তাদের সঙ্গে কূটনৈতিক উপায়ে সমঝোতা করতে চান ট্রাম্প। রেক্স টিলারসনকে দিয়ে তিনি এ কাজ করাচ্ছেন। কিন্তু এমন অভিযোগের সঙ্গে একমত নন করকার।

২০১৬ সালে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনী ক্যাম্পেইনে ট্রাম্পের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা ছিলেন করকার। ভাইস প্রেসিডেন্ট ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাছাইয়ের সময় ট্রাম্পের সংক্ষিপ্ত তালিকায় তার নাম ছিল। দুজনের মধ্যে ভালো সম্পর্কও ছিল। কিন্তু সেই সম্পর্কের চরম অবনতি হয়েছে এখন।

আগস্ট মাসে শার্লটসভিলে শ্বেতাঙ্গ উগ্রবাদীদের বিক্ষোভের সময় সহিংসতা হওয়ায় কৃষ্ণাঙ্গদের দায়ী করে ট্রাম্প যে বক্তব্য দিয়েছিলেন, তার কঠোর সমালোচনা করেন করকার।

এদিকে, করকার সম্পর্কে ট্রাম্প বলেছেন, ‘সিনেটর বব করকার পুনর্নির্বাচন করতে আমার সমর্থন ‘‘ভিক্ষা’’ চেয়েছিলেন। আমি বলেছিলাম, না এবং তিনি সরে দাঁড়ান।’ ট্রাম্প আরো বলেছেন, ‘তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রীও হতে চেয়েছিলেন, আমি বলেছিলাম, না- ধন্যবাদ। ইরানের সঙ্গে ভয়ংকর চুক্তির জন্যও তিনি অনেকাংশে দায়ী।’

তথ্যসূত্র : রয়টার্স অনলাইন