যশোর ও টাঙ্গাইলে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৪

বাংলাদেশের যশোর ও টাঙ্গাইলে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে চারজন নিহত হয়েছে। এছাড়া রংপুরে পুলিশের পিটুনিতে একজন নিহত এবং যশোরে এক ছাত্রশিবির নেতাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে তুলে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

যশোরে ‘গোলাগুলি’তে নিহত ২

যশোরে পুলিশের হাতে আটক দুই যুবক কথিত গোলাগুলিতে নিহত হয়েছেন।

শনিবার ভোররাতে যশোর শহরের এমএম কলেজ উত্তর গেটের কাছে বাস্কেটবল গ্রাউন্ডের সামনে একজন এবং যশোর-বেনাপোল মহাসড়কের মালঞ্চি গেঞ্জি মিলের কাছ থেকে অপর যুবকের ‘গুলিবিদ্ধ লাশ’ উদ্ধার করা হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগে দায়িত্বরত ডাক্তার কাজলকান্তি মল্লিক জানান, কোতোয়ালী থানার পুলিশ অজ্ঞাত এক যুবককে রাত সোয়া দুইটার দিকে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় হাসপাতালে আনেন। তার মাথার ডান পাশে গুলিবিদ্ধ হয়েছে। এর কিছু সময় পর রাত পৌনে তিনটার দিকে পুলিশ আরেক যুবককে হাসপাতালে আনে। এই যুবকেরও মাথার ডান পাশে গুলিবিদ্ধ হয়েছে। হাসপাতালে আনার আগেই মারা গেছেন দুই যুবক।

নিহত দুই যুবক হলেন- যশোর শহরতলী খোলাডাঙ্গা এলাকার আব্বাস গাজীর ছেলে হাবিব গাজী (২২) এবং খুলনার ফুলতলা গাড়াখোলা গ্রামের আব্দুর রশীদ বিশ্বাসের ছেলে আজীম বিশ্বাস (২৮)।

স্থানীয় মহিলা মেম্বার সাহিদা ইয়াসমিন বলেন, বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশ হাবিবসহ পাঁচজনকে এলাকার হাসান দফাদারের বাড়ি থেকে ধরে নিয়ে আসে। তারপর থেকে হাবিবের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না।

নিহত হাবিবের ভাই আসাদ গাজী জানান, “গত বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে খোলাডাঙ্গা এলাকা থেকে পুলিশ হাবিব গাজীসহ পাঁচ জনকে আটক করে। আমার ভাই নিরপরাধ, পুলিশই তাকে মেরে ফেলেছে।”

একইভাবে, নিহত আজিম বিশ্বাসের স্ত্রী নাজমা বেগম দাবি করেছেন, তার স্বামীকে গত রোববার পুলিশ পরিচয় আটক করে নিয়ে যায়।

রংপুরে পুলিশের ‘পিটুনি’তে যুবক নিহত

রংপুর মহানগরীর খাসবাগ বালাটারীতে নুরনবী নামে এক যুবক পুলিশের পিটুনিতে মারা গেছেন বলে অভিযোগ করেছে পরিবার।

তবে পুলিশ দাবি করেছে, মোটরসাইকেল চুরি ও ছিনতাইয়ে বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর সময় শনিবার সকালে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যায় নুরনবী।

নিহত নুরনবীর পিতা আব্দুর রশিদ জানান, “আমার তিন ছেলে এবং স্থানীয় যুবক তোফাজ্জল ও গোলজার মিলে বাড়ির পাশে ইলেক্ট্রিক যন্ত্রাংশের ব্যবসা করে। শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে মাহিগঞ্জ সাতমাথা এলাকার পুলিশের সোর্স বাবুসহ পুলিশের এসআই তারেক ও তোফাজ্জল আমাদের বাড়িতে আসেন। এ সময় আমার তিন পুত্রের বিরুদ্ধে মামলা আছে বলে তাদেরকে আটক করে মারধর করতে থাকে পুলিশ। এক পর্যায়ে ১ লাখ টাকা দাবি করে। এ সময় ৮০ হাজার টাকা ম্যানেজ করে পুলিশকে দেই। কিন্তু ততক্ষণে আমার পুত্র নুরনবী পুলিশের পিটুনিতে মারা যায়। এরপর শনিবার সকালে পুলিশ আমার বাড়িতে এসে বলে তোমার পুত্র হার্ট এ্যাটাক করে মারা গেছে, অপমৃত্যুর মামলা করতে হবে। তখন এলাকাবাসী পুলিশকে আটক করে রাখে এবং বিক্ষোভ করে। পরে অতিরিক্ত পুলিশ এসে তাদের ছাড়িয়ে নিয়ে যায়।”

টাঙ্গাইলে ডিবি’র সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নিহত ২

টাঙ্গাইলের মধুপুর উপজলার টেলকি-গায়রা এলাকায় পুলিশের গোয়েন্দা শাখার (ডিবি) সদস্যদের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুজন নিহত হয়েছেন। নিহত ব্যক্তিদের পরিচয় জানা যায়নি।

আজ রোববার ভোররাত ৪টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বন্দুকযুদ্ধের পর ঘটনাস্থল থেকে একটি পিস্তল, তিনটি গুলি, দুটি চাপাতি, বিভিন্ন ধরনের বই ও একটি মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয় বলে পুলিশ জানিয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ২১ আগস্ট উপলক্ষে বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে হামলার শঙ্কায় পুলিশ মধুপুরের বিভিন্ন এলাকা নজরদারিতে রাখে। ভোর ৪টার দিকে গায়রা এলাকায় তল্লাশির উদ্দেশ্যে একটি মোটরসাইকেলের গতিরোধ করে পুলিশ। এ সময় মোটরসাইকেলের দুই আরোহী পুলিশের ওপর অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। পুলিশ গুলি চালালে দুজন আহত হয়। পরে স্থানীয় লোকজন দুজনকে মধুপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁদের মৃত ঘোষণা করেন।

টাঙ্গাইল জেলা ডিবির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অশোক কুমার সিংহ জানান, বন্দুকযুদ্ধে নিহত দুজন জঙ্গি তৎপরতার সঙ্গে জড়িত থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

পাবনায় শিবির নেতাকে তুলে নেয়ার অভিযোগ

অপরদিকে, পাবনায় আইন শৃঙ্খলাবাহিনী পরিচয়ে গত শুক্রবার সকাল সাড়ে ১০টার সময় ইসলামী ছাত্রশিবির পাবনার সুজানগর উপজেলা শাখার সভাপতি মনিরুল ইসলামসহ ৭ কর্মীকে আইনশৃংখলাবাহিনী পরিচয়ে তুলে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনার দুই দিনেও তাদের কোন সন্ধান না পেয়ে পরিবারের লোকজন মানসিক ভাবে ভেঙে পড়েছেন। তবে আইন শৃংখলাবাহিনী তাদের আটকের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন।

You Might Also Like