যশোরে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ জামায়াত কর্মী নিহত

যশোরে পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে জামায়াতে ইসলামীর এক কর্মী নিহত হয়েছেন, যিনি আগের দিন ধরা পড়ার পর পুলিশ ভ্যান থেকে পালিয়েছিলেন বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।
নিহত শহীদুল ইসলাম সাতক্ষীরা সদর উপজেলার কাশিমপুর গ্রামের মৃত নূর আলী সোনার ছেলে। ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাবেক কর্মী শহীদুল বর্তমানে জামায়াতে ইসলামীর রাজনীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।
বৃহস্পতিবার মধ্য রাতে যশোর সদর উপজেলার রামনগর এলাকায় যশোর-খুলনা মহাসড়কে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ তিনি নিহত হন বলে যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কেএম আরিফুল হক জানিয়েছেন।
তিনি বলেন, “পুলিশের একটি টহল দল রাত আড়াইটার দিকে রামনগর পিকনিক কর্নার এলাকায় একটি সাদা মাইক্রোবাসকে থামার সংকেত দেয়। সংকেত উপেক্ষা করে তারা এগোতে থাকলে পুলিশ পিছু নিলে মাইক্রোবাস থেকে পুলিশকে লক্ষ্য করে বোমা নিক্ষেপ ও গুলি ছোড়া হয়। আত্মরক্ষার্থে পুলিশও পাল্টা গুলি ছোড়ে।”
এসময় গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন শহীদুল ইসলাম। তাকে উদ্ধার করে যশোর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসকরা শহীদুলকে মৃত ঘোষণা করেন বলে পুলিশ কর্মকর্তা আরিফ জানান।
তিনি বলেন, যশোরের শার্শা থানা পুলিশ বৃহস্পতিবার দুপুরে শহীদুলের সঙ্গে আবদুল মজিদ নামে আরেকজনকে আটক করে। পরে তাদের যশোর আদালতে আনার পথে পুলিশের গাড়ি থেকে তারা লাফিয়ে পালিয়ে যায়।
এ ঘটনায় যশোর কোতোয়ালি থানায় একটি জিডি করা হয় বলেও জানান তিনি।
নিহত শহীদুলের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা ও কলারোয়া থানায় হত্যাসহ নাশকতার বিভিন্ন অভিযোগে পাঁচটি মামলা রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

You Might Also Like