হোম » ম্যানচেস্টারে হামলাকারী আবেদি আইএসের সমর্থক!

ম্যানচেস্টারে হামলাকারী আবেদি আইএসের সমর্থক!

ঢাকা অফিস- Thursday, May 25th, 2017

ম্যানচেস্টার এরিনায় আত্মঘাতী বিস্ফোরণের সন্দেহভাজন হামলাকারীর পরিচয় নিশ্চিত করেছে ব্রিটিশ পুলিশ। তার নাম সালমান রামাদান আবেদি, বয়স ২২ বছর।

আবেদির জন্ম ১৯৯৪ সালের নববর্ষের দিন, যুক্তরাজ্যের ম্যানচেস্টারে। গাদ্দাফির দুঃশাসন এড়াতে তার মা-বাবা লিবিয়া থেকে উদ্বাস্তু হয়ে আশ্রয় নেন ব্রিটেনের এই শহরে। শহরটিতে অনেক লিবীয়র বসবাস রয়েছে। এই শহরের বার্নেজ হাই স্কুল থেকেই পাশ করেন আবেদি। এরপর স্যালফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হলেও পরে বিশ্ববিদ্যালয় ছেড়ে মুদি দোকানে চাকরি নেন তিনি।

আবেদির বাবা ডিডসবারির এক মসজিদে মুয়াজ্জিন হিসেবে কাজ করতেন। কিন্তু বর্তমানে তিনি ও তার স্ত্রী লিবিয়ায় আছেন। আবেদি নিজেও কিছু দিন লিবিয়ায় ছিলেন। তবে সম্প্রতি তিনি ব্রিটেনে ফিরে আসেন।

আবেদির সহপাঠী ও বন্ধুরা জানান, আবেদি ফুটবলের ভক্ত ছিলেন। বিশেষত ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পাঁড় সমর্থক ছিলেন তিনি। গাঁজা সেবনের অভ্যাসও ছিল তার। এমনিতে হাসিখুশি ও বিচক্ষণ হলেও রগচটার প্রবণতাও ছিল তার। এ ছাড়া সরল প্রকৃতির আবেদি যে কারো মিথ্যাচার সহজে বিশ্বাস করে নিতেন। পরবর্তীতে তিনি অসৎ সঙ্গে পড়েন আর ‘মাত্রাতিরিক্ত ধার্মিক’ হয়ে ওঠেন। পুরোনো বন্ধুদের সঙ্গে মেলামেশাও বন্ধ করে দেন।

ডিডসবারির মসজিদের ট্রাস্টি ফাওয়াজ হাফার বলেন, আবেদি সম্ভবত এই মসজিদে নামাজ আদায় করতেন। তার বাবার পাশাপাশি তার ভাইও এই মসজিদে স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করতেন। হাফার জানান, তিনি আইএসের বিরুদ্ধে বক্তব্য দেওয়ার পর থেকেই আবেদি তাকে ঘৃণার চোখে দেখা শুরু করেন।

ম্যানচেস্টারের চিফ কনস্টেবল ইয়ান হপকিন্স জানান, ময়না তদন্তকারী আনুষ্ঠানিকভাবে এখনও আবেদিকে হামলাকারী বলে ঘোষণা করেননি। তারা এখনো সম্পূর্ণ নিশ্চিত নন, হামলার সময় আবেদি একা ছিলেন- না কি তার সঙ্গে আরো কেউ ছিলেন। এই ঘটনায় আবেদির ২৩ বছর বয়সি ভাই ও আরো তিন জনকে আটক করেছে পুলিশ।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যাম্বার রাড বলেন, আবেদির সম্পর্কে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী আগে থেকেই অবহিত ছিল। অন্যদিকে, আইএস এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, তাদের এক সদস্যই এই কাণ্ড ঘটিয়েছেন।