মেহেরপুরে গৃহবধূ হত্যা মামলায় তিন জনের যাবজ্জীবন

মেহেরপুর শহরের মল্লিকপাড়ার গৃহবধূ রাশেদা বেগম (২৫) হত্যাকাণ্ডের তিন আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে মেহেরপুর অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিজ্ঞ বিচারক টিএম মুসা ওই রায় প্রদান করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হচ্ছে- সদর উপজেলার যাদবপুর গ্রামের মিয়ারুল ইসলাম, কাবিদুল ইসলাম ও সেন্টু মিয়া। তিন জনকেই জেলা কারাগারে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

পরকীয়া প্রেমের জের ধরে রাশেদা বেগমকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর মেহেরপুর শহরের উপকন্ঠে যাদবপুর মাঠের মধ্যে মাটির নিচে পুঁতে রাখে।

ঘটনার কয়েকদিন পরে ২০১০ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি মাটি খঁড়ে মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

মামলার বিবরণে জানা গেছে, গাংনী উপজেলার চেংগাড়া গ্রামের প্রবাসী আবুল বাসারের স্ত্রী রাশেদা বেগম মেহেরপুর শহরের মল্লিকপাড়ায় ভাড়া বাসায় বসবাস করতেন। স্বামীর অনুপস্থিতির সুযোগে দণ্ডপ্রাপ্ত তিন আসামির সঙ্গে পর্যায়ক্রমে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। এর জের ধরে ওই তিন আসামি তাঁকে খুন করে মাটি চাপা দিয়ে রাখে।

সদর থানার তৎকালীন এসআই জিহাদ আলী বাদি হয়ে লাশ উদ্ধারের দিনে অজ্ঞাতনামা আসামির নামে সদর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হওয়া মোবাইল ফোনের সিম কার্ডের সূত্র ধরে ওই তিনজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ওই বছরের ১০ মে মেহেরপুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মাসুদ আলীর আদালতে হত্যাকা-ের স্বীকারোক্তি দেয় কাবিদুল ও সেন্টু। একই বছরের ২৮ আগস্ট তিনজনকে দোষী সাব্যস্ত করে আদালতে চার্জশিট দেয় পুলিশ। ১১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আদালত ওই রায় প্রদান করেন।

রায়ে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী কাজী শহিদুল হক।

You Might Also Like