মিশরে ২৮ জনের প্রাণদণ্ড

মিশরের একটি আদালত ২০১৫ সালে দেশটির শীর্ষ সরকারি কৌঁসুলির হত্যা মামলায় ২৮ জনকে প্রাণদণ্ড দিয়েছেন।

তবে এর আগে মৃত্যুদণ্ডের রায়ে অনুমোদন দেয় মিশরের সর্বোচ্চ ধর্মীয় কর্তৃপক্ষ। মৃত্যুদণ্ড ঘোষণার আগে সর্বোচ্চ ধর্মীয় কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমোদন নেওয়া দেশটির রেওয়াজ।

একই মামলায় অন্য ১৫ জনের প্রত্যেককে ২৫ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। ২০১৫ সালে এক গাড়িবোমা হামলায় নিহত হন পাবলিক প্রসিকিউটর হিশাম বারাকাত। এ জন্য মুসলিম ব্রাদারহুড ও গাজাভিত্তিক ইসলামপন্থি সংগঠন হামাসকে দায়ী করে মিশর সরকার। মিশরে নিষিদ্ধ এই দুই সংগঠনই তাদের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করে।

জুন মাসে আদালত তার রায়ে সুপারিশের জন্য সর্বোচ্চ ধর্মীয় কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠায়। মিশরের প্রধান ইমাম সর্বোচ্চ ধর্মীয় কর্তৃপক্ষ হিসেবে বিবেচিত। মৃত্যুদণ্ডের রায়ে তিনি অনুমোদন দিতে পারেন, আবার না-ও পারেন। তবে তার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে আদালত বাধ্য নন।

এই মামলায় শনিবার আদালত তার চূড়ান্ত রায় শোনান। তবে রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করার সুযোগ পাবেন আসামিরা।

আসামি পক্ষের এক আইনজীবী আহমেদ সাদ রায়ের পর তার প্রতিক্রিয়ায় বলেন, ‘আজকের এ রায় দুঃখজনক।’ তিনি আরো বলেন, ‘অন্য যারা হিশাম বারাকাতের হত্যার সঙ্গে জড়িতই নন, তাদেরকেও আজীবন কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।’

আসামিরা দাবি করেছেন, নির্যাতন করে তাদের কাছ থেকে স্বীকারোক্তি আদায় করা হয়েছে। তাদের আইনজীবী আদালতের কাছে আবেদন করেন, তার মক্কেলদের দাবি আমলে নিয়ে তাদের মেডিক্যাল পরীক্ষা করা হোক। কিন্তু তা করা হয়নি।

You Might Also Like