মিন্দানাওয়ে বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দমনে সামরিক আইনের মেয়াদ বাড়ল

মিন্দানাও দ্বীপে মুসলিম বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দমনে সামরিক আইনের মেয়াদ বাড়ালো ফিলিপাইন।

জঙ্গিগোষ্ঠী আইএসের সঙ্গে একাত্মতা ঘোষণাকারী ফিলিপাইনের তথাকথিত ইসলামপন্থি বিচ্ছিন্নতাবাদীরা রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ অব্যাহত রাখায় দুই মাস আগে মিন্দানাও দ্বীপে সামরিক আইন জারি করেন দেশটির প্রেসিডেন্ট রদ্রিগো দুতের্তে। ফিলিপাইনের কংগ্রেস সেই সামরিক আইন ২০১৭ সালের ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত বহাল রাখার অনুমোদন দিয়েছেন।

শনিবার ফিলিপাইনের কংগ্রেসে হাউস ও সিনেটের এক যৌথ অধিবেশনে সামরিক আইনের (মার্শাল ল) মেয়াদ বাড়ানো নিয়ে ভোটাভুটি হয়। এর পক্ষে অভাবিত ভোট পড়েছে। কংগ্রেসের তিন শয়ের বেশি সদস্যের মধ্যে ২৬১ জন বিলের পক্ষে ভোট দিয়েছেন। মাত্র ১৮ জন বিপরীতে ভোট দিয়েছেন। বাকিরা ভোট দেওয়া থেকে বিরত ছিলেন।

ভোটের আগে নিরাপত্তা কর্মকর্তারা পার্লামেন্টকে মিন্দানাওয়ের পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত করেন। তারা বলেন, আইএসের জঙ্গিরা মিন্দানাওয়ে মাথা চাড়া দিয়ে উঠেছে। তাদের সমর্থকরা বিদেশি জঙ্গিদের সাহায্য নিয়ে দ্বীপের বিভিন্ন অংশে বিপ্লবের নামে সহিংসতা চালাতে পারে। ফলে তাদের দমনে সামরিক আইন অব্যাহত রাখার প্রয়োজন আছে।

মিন্দানাও দ্বীপে অস্ত্রধারী বিচ্ছিন্নতাবাদীরা তছনছ শুরু করলে ২৩ মে ৬০ দিনের জন্য মার্শাল ল জারি করেন দুতের্তে, যার মেয়াদ শেষ হচ্ছে ২৩ জুলাই। সংবিধান মতে, একটানা ৬০ দিনের বেশি সামরিক আইন জারি রাখতে পারেন না প্রেসিডেন্ট। যদি তা বহাল রাখতে হয়, তাহেল কংগ্রেসের অনুমোদন লাগে। সে অনুযায়ী, শনিবার ফিলিপাইনের কংগ্রেসে মিন্দানাওয়ে সামরিক আইন জারি রাখা নিয়ে ভোটাভুটি হয় এবং তা সংখ্যাগরিষ্ঠের ভোটে অনুমোদিত হয়।

সামরিক আইনে বিনা অভিযোগে যে কাউকে গ্রেপ্তার ও অনির্দিকালের জন্য বন্দি রাখার ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে সেনাবাহিনীকে। দুতের্তের বিরোধীদের অভিযোগ, ক্ষমতা আরো বেশি কুক্ষিগত করতে এ কাজ করেছেন দুতের্তে।

You Might Also Like