মার্কিন অস্ত্র আর প্রশিক্ষণ নিয়ে আল-কায়েদায় যোগদান

যুক্তরাষ্ট্র থেকে অস্ত্র ও প্রশিক্ষণ নিয়ে অবশেষে  আল-কায়েদায় যোগ দিয়েছে সিরিয়ার দুটি সরকার বিরোধী বিদ্রোহী গোষ্ঠী।

সিরিয়ার সরকার এবং জেহাদি গ্রুপ উভয়ের সাথে লড়াই করার জন্য দুটি প্রধান বিদ্রোহী গ্রুপ হারাকাত হাযম এবং সিরিয়ার বিপ্লবী ফ্রন্ট মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে বিপুল পরিমাণ অস্ত্রসামগ্রী পেয়ে আসছিল। শনিবার গ্রুপ দুটি আল-কায়েদার নিকট আত্মসমর্পণ করেছে।

স্থল বাহিনীর অংশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র এবং তার  মিত্র জোট হারাকাত হাযম এবং সিরিয়ার বিপ্লবী ফ্রন্টের উপর নির্ভর করে আসছে। তারা ইরাক ও পূর্ব ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে আক্রমণ পরিচালনা করছে।

গত ছয় মাস যাবত হাযম এবং সিরিয়ার বিপ্লবী ফ্রন্ট মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোট থেকে জিআরএডি রকেট এবং টিওডব্লিউ অ্যান্টি ট্যাংক ক্ষেপণাস্ত্রসহ ভারী অস্ত্রসামগ্রী পেয়ে আসছেন।

শনিবার রাতে হারাকাত হাযম জুবাত আল-নুসরার সামরিক ঘাঁটিতে আত্মসমর্পণ করে এবং তাদের অস্ত্রসামগ্রী নুসরার  নিকট সরবরাহ করে। আল-কায়েদার শাখা জুবাত আল-নুসরা সিরিয়ার উত্তর ইদলিব প্রদেশ নিয়ন্ত্রয়ন করছে।

জুবাত আল-নুসরা সিরিয়ার বিপ্লবী ফ্রন্টকে চূড়ান্ত  মোকাবেলা করার এক দিন পরে হাযম নুসরার কাছে আত্মসমর্পণ করল। নুসরা বিপ্লবী ফ্রন্টকে হটিয়ে দেইর সিনবাল দখল করে নেয়। দেইর সিনবাল সিরিয়ার বিপ্লবী ফ্রন্টের লিডার জামাল মারুফের জন্মভূমি।

নুসরার আক্রমণে বিপ্লবী ফ্রন্ট হামায় তার অধিকাংশ অঞ্চল হতে বিতাড়িত হয়েছে।

একজন সিরিয়া বিশ্লেষক আইমান আল-তামিমি বলেন, ‘নুসরার আক্রমণে বিপ্লবী ফ্রন্ট কার্যত শেষ হয়ে গেছে। নুসরা হামা এবং ইদলিবে অবস্থিত বিপ্লবী ফ্রন্টের শক্তিশালী দূর্গ থেকে তাদের বিতাড়িত করেছে।’

বিপ্লবী ফ্রন্টের পতন এবং হারাকাত হাযমের উপর হামলা নাটকীয়ভাবে তাদের দুর্বল করে দিয়েছে।

আল-কায়েদার হাতে যুক্তরাষ্ট্রের সরবরাহকৃত অস্ত্র পৌঁছানো তাদের জন্য বাস্তবে একটি দুঃস্বপ্ন।

শনিবার এটি তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি আমেরিকান টিওডব্লিউ ক্ষেপণাস্ত্র নুসরার নিকট মজুদ রয়েছে কিনা। তবে বেশ কিছু নুসরা সদস্য বিজয়ীর বেশে টুইটারে ঘোষণা দেয় যে, তাদের কাছে তা মজুদ রয়েছে।

সূত্র: টেলিগ্রাফ

You Might Also Like