মদিনা শরিফের খুতবা : জিলহজ মাসের ফজিলত ও করণীয়

শায়েখ ড. হুসাইন

শায়েখ ড. হুসাইন বিন আবদুল আজিজ আলে শায়েখ

জিলহজ মাসের ফজিলত ও করণীয়
জিলহজের প্রথম ১০ দিন অত্যন্ত ফজিলতপূর্ণ। সৌভাগ্যবান তো সে, যে এ সময়ে নেক আমলের প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হয়। আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘যাতে তারা তাদের কল্যাণময় স্থানগুলোতে উপস্থিত হতে পারে এবং নির্দিষ্ট দিনগুলোতে আল্লাহর নাম উচ্চারণ করতে পারে।’ (সুরা হজ : ২৮)। একাধিক সাহাবির বর্ণনা থেকে প্রমাণিত, এই আয়াতে নির্দিষ্ট দিনগুলো দ্বারা জিলহজের প্রথম ১০ দিন উদ্দেশ্য। এই ১০ দিনের নাম নিয়ে আল্লাহ তায়ালা শপথও করেছেন। যার মাধ্যমে এ দিনগুলোর মহিমা ও সম্মান ফুটে ওঠে।

আল্লাহ তায়ালা বলেন, ‘শপথ ঊষার, শপথ ১০ রজনীর। অধিকাংশ মুফাসসিরের মত হচ্ছে, ওই ১০ রজনী হলো জিলহজের প্রথম ১০ দিন। সুতরাং যে ব্যক্তি সফলতা ও কল্যাণপ্রাপ্তির আশা করে সে যেন নেক আমলের মাধ্যমে আল্লাহর সঙ্গে সওদা করে নেয়। এ দিনগুলো যেন কিছুতেই ছুটে না যায়। বরং এটাকে গ্রহণ করে এর কল্যাণের প্রতি ধাবিত হওয়া উচিত। এর মহা প্রতিদান ও ফজিলতগুলো অর্জন করে নেওয়া উচিত।

ইবনে আব্বার (রা.) থেকে বর্ণিত, নবীজি (সা.) বলেন, ‘আল্লাহ তায়ালার কাছে যে কোনো দিনের সৎ আমলের চেয়ে জিলহজ মাসের প্রথম ১০ দিনের আমল অধিক প্রিয়।’ লোকেরা জিজ্ঞেস করল হে আল্লাহর রাসুল (সা.), ‘আল্লাহর পথে জিহাদও নয় কি?’ তিনি বললেন না, জিহাদও নয়। তবে যে ব্যক্তি তার জানমাল নিয়ে জিহাদে বের হয় এবং এর কোনো একটি নিয়েও ফিরে না আসে তার কথা ভিন্ন।’ (বোখারি)।

সুতরাং এই সুযোগের কোনো বিকল্প হতে পারে না। আল্লহার নৈকট্য অর্জন করা, সওয়াবের পরিমাণ বৃদ্ধি করা ও গোনাহের কাফফারা আদায়ের জন্য একে সুবর্ণ সুযোগ মনে করা উচিত। ইবনে ওমর (রা.) থেকে বর্ণিত, নবীজি (সা.) বলেন, ‘আল্লাহর কাছে সবচেয়ে সম্মানিত ও আমলপ্রিয় দিন হচ্ছে জিলহজের প্রথম ১০ দিন। সুতরাং এ সময়ে তোমরা বেশি বেশি তাহলিল, তাকবির ও তাহমিদ আদায় করো।’ (মুসনাদে আমহদ)।

জাবের (রা.) থেকে বর্ণিত, নবীজি (সা.) বলেন, ‘দুনিয়ার মধ্যে শ্রেষ্ঠতম দিন হচ্ছে জিলহজের প্রথম দশক।’ এদিনের মহত্ত্ব ও সম্মান জানা থাকায় আমাদের পূর্বসূরিরা এ দিনগুলোতে আমলে ডুবে যেতেন। আবু ওসমান নাহদি (রহ.) বলেন, ‘সালাফরা রমজানের শেষ দশক এবং জিলহজ ও মহররমের প্রথম দশককে খুব মূল্যায়ন করতেন।

বোখারি শরিফে ইবনে ওমর ও আবু হুরায়রা (রা.) সম্পর্কে বর্ণিত হয়েছে, জিলহজের প্রথম ১০ দিনে তারা বাজারে বের হতেন এবং তাকবির পাঠ করেতেন। তাদের তাকবির শুনে অন্যরাও তাকবির বলতেন। তাবেঈ মায়মুন বিন মিহরান (রহ.) বলেন, ‘আমরা সাহাবায়ে কেরামকে এই ১০ দিনে এত অধিক পরিমাণে তাকবির পাঠ করতে দেখেছি, সাগরের ঢেউয়ের সঙ্গে তুলনা করা যায়।’

নবীজি (সা.) হাদিসে যে নেক আমল সম্পর্কে বলেছেন তা নির্দিষ্ট কোনো আমলের সঙ্গে সম্পৃক্ত নয়। বরং এর দ্বারা শরিয়তের প্রতিটি ইবাদতকেই বোঝানো হয়েছে। যেমন নামাজ, রোজা, হজ, কোরবানি, কোরআন তেলাওয়াত, নবীজির ওপর দরুদ পাঠ ইত্যাদি, যা একান্তই শারীরিক ও ব্যক্তিগত আমল।

এছাড়া আরও এমন কিছু আমল রয়েছে যা ইবাদত তো বটেই, পাশাপাশি তাতে অপর মুসলমান ভাইয়ের কল্যাণ নিহিত রয়েছে। যেমন কাউকে দান করা। কারও প্রতি অনুগ্রহ করা। কোনো ভাইয়ের প্রয়োজন পুরা করা। অভাবে-অনটনে তার পাশে থাকা। সর্বোপরি সাহায্য-সহযোগিতার মাধ্যমে অপর ভাইকে খুশি করা। কখনও কখনও এধরনের আমল অন্য আমলের চেয়েও অধিক উত্তম বলে বিবেচিত হয়।

একাধিক গ্রহণযোগ্য দলিলের ভিত্তিতে জিলহজের প্রথম ১০ দিনে রোজা রাখা এবং বেশি বেশি আল্লাহর জিকির করা মুস্তাহাব বলে বিবেচিত হয়। মুহাদ্দিসরা বলেছেন, এ দিনগুলোতে তাকবির পড়ার দুটি পদ্ধতি রয়েছে। প্রথম পদ্ধতি হচ্ছে আইয়ামে তাশরিকের পুরো সময়টাতে যে কোনো স্থানে উচ্চ বা নিম্ন স্বরে আল্লাহর জিকির করা। দ্বিতীয় পদ্ধতি হচ্ছে, ৯ জিলহজে আরাফার দিন ফজরের পর থেকে ১৩ তারিখ আসরের পর পর্যন্ত প্রতি ফরজ নামাজের পর তাকবির বলবে।

তবে হাজিরা আরাফর দিন জোহরের পর থেকে শুরু করবেন। এ ব্যাপারে সাহাবা কেরাম ও তাবেঈদের কাছ থেকে একাধিক হাদিস ও উক্তি বর্ণিত রয়েছে। অধিক বর্ণিত তাকবিরের শব্দগুলো হচ্ছে ‘আল্লাহু আকবার, আল্লাহু আকবার, লাইলাহা ইল্লাল্লাহু আল্লাহু আকবার, আল্লাহু আকবার, ওয়া লিল্লাহিল হামদ।’

এই দশকের উল্লেখযোগ্য বিধান হচ্ছে, ১০ তারিখ এবং তার পরবর্তী দু’দিনের মধ্যে কোরবানি করা। জিলহজ মাসের চাঁদ ওঠার পর যখন কোনো মানুষ কোরবানির নিয়ত করে তখন তার করণীয় হচ্ছে কোরবানি করার আগ পর্যন্ত তিনি নখ ও চুল কাটা থেকে বিরত থাকবেন। হজরত উম্মে সালামা (রা.) নবীজি (সা.) থেকে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন, যখন তোমরা জিলহজ মাসের চাঁদ দেখবে আর তোমদের কেউ কোরবানির নিয়ত করবে, সে যেন তার চুল ও নখ না কাটে। (মুসলিম)। মূলত যিনি কোরবানি করবেন, এই বিধান শুধু তার জন্যই, পরিবারের অন্য সদস্যদের জন্য তা প্রযোজ্য নয়।

 

২৬ জিলকদ ১৪৪১ হিজরি মদিনার মসজিদে নববিতে প্রদত্ত খুতবার সংক্ষিপ্ত অনুবাদ মহিউদ্দীন ফারুকী

 

 

বাংলাদেশে সোনার দামে রেকর্ড, বাড়ল আরেক দফা

 

 

বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদফতরের নতুন ডিজি কে এই ডা. খুরশীদ?

 

যেসব বেয়াদবদের সাইজ করবেন অভিনেত্রী ফারিয়া

 

পরীমনির ছবিতে পরিচালক নিজেই প্রযোজক

 

ত্রিমুখী বিপর্যয়ে দক্ষিণ এশিয়ার ৯৬ লাখ মানুষ

 

 

বাংলাদেশের ইসি যে কারণে ইভিএম থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে

 

পাপুলকাণ্ডে ফাঁস হলো কুয়েতি জেনারেল মাজেনের কুকীর্তি

 

সামরিক শক্তিতে শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশ ৪৬তম

 

একে একে বেরিয়ে আসে ৩০টি অজগরের বাচ্চা

 

নারী লোভী ভন্ড সাধুর কাণ্ড নিয়েই…

 

 

পুরুষ সংকটে বিশ্বে যে ৬টি দেশ!

 

এবারও থাকছে মাহফুজুর রহমানের সংগীতানুষ্ঠান
একঘেয়েমি কাটাতে অনুষ্ঠানটি ভিন্ন মাত্রা যোগ করবে -প্রত্যাশা এটিএন বাংলা’র

 

নবনির্মিত সাইক্লোন শেল্টারটিই শেল্টার পেল না

 

একাধিক নারীর সঙ্গে ‘অনৈতিক সম্পর্ক’ সারওয়ার্দীর, প্রকাশ পেল যেভাবে

 

বিপাকে ফারজানা ব্রাউনিয়া, তৃতীয় বিয়েও …

 

অবশেষে জীবন শঙ্কায় আত্মগোপনে হাসান সারওয়ার্দী!

 

 

সাহেদ কাণ্ডে ফেঁসে যেতে পারেন যেসব প্রভাবশালী সাংবাদিকরা

 

 

সাহেদ কাণ্ড : ফেঁসে যাচ্ছেন বর্তমান ও সাবেক যেসব আমলারা

 

 

বাংলাদেশে করোনা উপসর্গ নিয়ে ১৮৭৪ জনের মৃত্যু

 

 

নিউইয়র্কের বিউটি এক্সপার্ট নারীর মরদেহ মিলল মিশরের হোটেলে

 

 

কাতারে করোনা আক্রান্তদের ১৪ ভাগই বাংলাদেশি

 

অভিনেতা সুশান্তের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ যে অভিনেত্রী

 

‘আমি সবসময় সাদামাটা, কোনো ডিমান্ড করি না’

 

নিকের থেকে বিয়ের প্রস্তাব পেয়ে, যা বলেছিলন প্রিয়াঙ্কা

You Might Also Like