ভয়ঙ্কর শখ!

মানসিক বৈকল্য আর কাকে বলে! রাশিয়ার এক মধ্যবয়সী লোকের শখই হলো মৃত মেয়ে শিশুর মরদেহ কফিন থেকে তুলে এনে মমি করে রাখা, সেগুলোকে সুন্দর পোশাক পরানো অথবা টেডিবিয়ারের মতো করে সাজানো এবং একসাথে ছবি তোলা।

রাশিয়ার ওই ব্যক্তিকে সম্প্রতি বিচারের অযোগ্য মানসিক ভারসাম্যহীন আখ্যা দিয়ে মানসিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

হাফিংটন পোস্ট সরকারি আইনজীবীর মুখপাত্রের বরাত দিয়ে জানিয়েছে, লোকটি শিশুর মরদেহ সংগ্রহের জন্য কমপক্ষে দেড়শটি সমাধি খুঁড়েছেন।

আনাতোলি মস্কভিন (৪৬) নামে ওই ব্যক্তি মধ্য রাশিয়ার নিঝনি নোভগরদের বাসিন্দা। তিনি ৩ থেকে ১২ বছর বয়সী মেয়ে শিশুর মরদেহ খোঁজার জন্য সাতশ’র বেশি সমাধিক্ষেত্র চষে বেড়িয়েছেন। তার বাড়িতেই পাওয়া গেছে কমপক্ষে ৬০টি মমি।

মস্কভিন ধরা পড়েন ২০১১ সালে যখন তার বাবা-মা তাকে দেখতে গিয়ে এই ভয়ঙ্কর শখের বিষয়টি ধরতে পারেন। আটকের পর থেকেই তার মানসিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হয় এবং পর্যবেক্ষণে রাখা হয়। তিন বছর পর্যবেক্ষণের পর এখন তাকে মানসিক চিকিৎসার জন্য ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।

তবে আদালত তাকে কিন্তু ‘জিনিয়াস’ বলেই বর্ণনা করেছেন। কারণ এই লোক পেশায় সাংবাদিক এবং ১৩টি ভাষায় অনর্গল কথা বলতে পারেন।

You Might Also Like