ভারত দখলেরও পরিকল্পনা করছে জঙ্গি সংগঠন আইসিস

সিরিয়া ও ইরাকের বিস্তৃণ এলাকা নিয়ে আলাদা সাম্রাজ্য গঠনের ঘোষণা দিয়েছে (ইসলামিক স্টেট ইন ইরাক অ্যান্ড সিরিয়া) জঙ্গি সংগঠন আইসিস। কিন্তু এখানেই থেমে থাকার পরিকল্পনা নেই এই সংগঠনের।

শীর্ষ ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড ডেইলি মেইলে প্রকাশিত হয়েছে এক চাঞ্চল্যকর সংবাদ। এই খবরে বলা হয়েছে, আগামী ৫ বছরের মধ্যে ভারতের বেশ কিছুটা অঞ্চল দখল করে নেওয়ার পরিকল্পনা রয়েছে এই কুখ্যাত জঙ্গিদের।

ডেইলি মেইলে প্রকাশ করা হয়েছে একটি মানচিত্র। এই মানচিত্রে যে এলাকাগুলো কালো রং করা হয়েছে ২০২০ সালের মধ্যে সেই এলাকাগুলো দখল করে ‘বিশেষ ইসলামি সাম্রাজ্য’ গঠনের পরিকল্পনা নিয়েছে আইসিস জঙ্গিরা।

সংগঠনের নাম অবশ্য এখন আর আইসিস নয়। খলিফাদের অনুকরণে সাম্রাজ্য গঠনের প্রাথমিক পর্যায় শেষ হয়েছে। ঘোষণা করার পরই এই সংগঠন নিজেদের নাম বদলে ‘ইসলামিক স্টেট’ করে নিয়েছে।

প্রাথমিক পর্যায় শেষ, তবে সংগঠনের মুখপাত্র আবু মুহম্মদ আল-আদনানির কথা অনুযায়ী, অন্তিম পরিকল্পনা শেষ হবে ২০২০ সালে।

ডেইলি মেইল পত্রিকায় যে মানচিত্র ছাপা হয়েছে, তাতে দেখানো হয়েছে ক্রমশ ভারতের উত্তর ও পশ্চিম দিকের অনেকটা অংশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তান ও ইরানের সম্পূর্ণ, সৌদি আরবসহ পারস্য উপসাগর সংলগ্ন সব’কটি দেশই দখল করে নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে এই সংগঠনের।

এছাড়া সোমালিয়া থেকে শুরু করে উত্তর আফ্রিকার পুরোটা এবং পশ্চিমে মরোক্কও দখলে নেয়ার ছক কষেছে জঙ্গিরা।

ইউরোপীয় রাজনীতিবিদদের চিন্তার কারণ অবশ্য মানচিত্রের পশ্চিম দিকটি নিয়েই। জঙ্গিদের পরিকল্পনা স্পেন ও পর্তুগাল দখল করা। গ্রিস, রোমানিয়া, বুলগেরিয়া ও অস্ট্রিয়া দখলের মতলবও রয়েছে তাদের।

পশ্চিম এশিয়ার ইসলামি জঙ্গি কার্যকলাপে বিশেষজ্ঞ আয়মেন আল-তামিমি জানিয়েছেন, অতীতে যে এলাকাগুলি বিভিন্ন সময় ইসলামি সুলতানদের অধিকারে ছিল সেই সব এলাকায়ই নিজেদের কব্জবায় আনার ইচ্ছা রয়েছে এই জঙ্গিদের।

আল-তামিমি আরো জানিয়েছেন, এই ভাবনার মধ্যে নতুনত্ব কিছু নেই। সারা বিশ্বে যেখানেই ইসলামি কট্টরপন্থীরা মাথা চাড়া দিয়েছে সেখানেই তারা খলিফাদের অনুকরণে সাম্রাজ্য গড়ে স্বর্ণযুগ ফিরিয়ে দেয়ার কথা ঘোষণা করেছে।

মঙ্গলবারও ইরাকি সেনারা তিক্রিত শহরকে দখল মুক্ত করতে পারেনি। গত কয়েক দিন ধরে ইরাকের সাবেক শাসক সাদ্দাম হোসেনের জন্মস্থান এই শহরের অধিকার ফিরে পেতে তুমুল লড়াই করছে ইরাকির সেনারা। কিন্তু এখনো পর্যন্ত সফল হওয়ার কোনো সম্ভাবনা দেখা যায়নি। রাশিয়া থেকে ৫টি সেকেন্ড হ্যান্ড সুখোই যুদ্ধবিমান আমদানি করেছে ইরাক। তবে এখনো পর্যন্ত কোনো বিমান হামলার খবর পাওয়া যায়নি।

You Might Also Like