ভারতের সংসদে বাজেট পেশ, রাজনৈতিক দলগুলোর মিশ্র প্রতিক্রিয়া

ভারতের সংসদে আজ কেন্দ্রীয় বাজেট পেশ করেছেন অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি। সংসদের নিম্নকক্ষ লোকসভায় বাজেট ভাষণে তিনি বিভিন্ন জনকল্যাণমূলক প্রকল্পের ঘোষণা করেন।

অর্থমন্ত্রী প্রতিরক্ষা খাতে গতবারের তুলনায় এবার অনেকটাই বাজেট বরাদ্দ বাড়িয়েছেন। মোট বাজেটের ১২.৭৮ শতাংশ ওই খাতে বরাদ্দ করা হয়েছে। এ নিয়ে পরপর দুইবার কেন্দ্রীয় সরকার প্রতিরক্ষা খাতে ১০ শতাংশের বেশি বরাদ্দ করল। অর্থমন্ত্রী আজ ২.৭৪ লাখ কোটি টাকা প্রতিরক্ষা খাতে ব্যয় বরাদ্দের ঘোষণা দেন। গত বার প্রায় ১১ শতাংশ টাকা ওই খাতে বরাদ্দ করা হয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি অর্থমন্ত্রীর বাজেটকে ‘উত্তম বাজেট’ বলে মন্তব্য করেছেন। বাজেটে দরিদ্র, কৃষক, দলিত, নিপীড়িত এবং গ্রামবাসীদের দিকেই নজর দেয়া হয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

ভারতের প্রধান বিরোধীদল কংগ্রেসের ভাইস প্রেসিডেন্ট রাহুল গান্ধী অবশ্য এই বাজেটকে ‘শের ও শায়েরি’র বাজেট বলে অভিহিত করে একে ‘দিশাহীন, ভাবনাহীন বাজেট’ বলে মন্তব্য করেছেন।

রাহুল বলেন, ‘মোদি সরকার প্রত্যেক বছর দুই কোটি মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। কিন্তু গত বছর মাত্র দেড় লাখ মানুষ কাজ পেয়েছে। কৃষকদের ঋণ মওকুফ করা হয়নি। মোদি কেবল বড় বড় ভাষণই দিয়ে থাকেন।’

তিনি বলেন, আমরা আতশবাজির কথা ভেবেছিলাম কিন্তু পেলাম নিষ্ক্রিয় বারুদ।

শিবসেনা প্রধান উদ্ধব ঠাকরে বলেছেন, ‘প্রত্যেক বছর বাজেট পেশ করার কী প্রয়োজন? গতবছরের ঘোষিত প্রকল্প কী সম্পূর্ণ হয়েছে?’

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন্দ্রীয় বাজেটকে অর্থহীন, দিশাহীন, ভিত্তিহীন, লক্ষ্যহীন, প্রভাবহীন এবং অমানবিক বলে অভিহিত করেছেন।

তিনি বলেন, করদাতাদের এখনো ব্যাংক থেকে টাকা তোলার ক্ষেত্রে বিধি-নিষেধ রয়েছে। নোট বাতিল এবং সে বিষয়ে কোনো কথা ও তথ্যের উল্লেখ নেই। শুধু কথার খেলায় মানুষকে বিভ্রান্ত করা হয়েছে। বাজেটকে কেবল সংখ্যা এবং কথার ভেলকি বলেও কটাক্ষ করেছেন মমতা।

You Might Also Like