হোম » ভারতীয় সেনাপ্রধানের পাশে পাররিকার-রিজিজু, ক্ষুব্ধ কাশ্মিরি নেতারা

ভারতীয় সেনাপ্রধানের পাশে পাররিকার-রিজিজু, ক্ষুব্ধ কাশ্মিরি নেতারা

ঢাকা অফিস- শুক্রবার, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৭

কাশ্মিরে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর সময় নিরাপত্তা বাহিনীকে বাধা প্রদানকারীদের উদ্দেশে ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল বিপিন রাওয়াত যে কঠোর হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তা সমর্থন করেছেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পাররিকার এবং স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী কিরণ রিজিজু।

সেনা প্রধান বিপিন রাওয়াত গত বুধবার বলেছেন, সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালানোর সময় নিরাপত্তা বাহিনীকে বাধা প্রদানকারী ব্যক্তিদের ‘সন্ত্রাসবাদীদের লোক’ হিসেবে গণ্য করা হবে। তার ওই মন্তব্য নিয়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠনের পক্ষ থেকে সমালোচনা করা হয়েছে।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রী মনোহর পাররিকার এক বেসরকারি তিভি চ্যানেলে দেয়া সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘সেনা অভিযানের সময় স্থানীয়ভাবে কেউ বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে সেসময় কমান্ডিং অফিসারের সিদ্ধান্ত নেয়ার পূর্ণ অধিকার রয়েছে। সেনাবাহিনী সব কাশ্মিরিদের সন্ত্রাসীদের সমর্থক বলে মনে করে না। কিন্তু যারা সন্ত্রাসীদের সঙ্গে আছে তারা সন্ত্রাসীই।’

অন্যদিকে, কিরণ রিজিজু বলেছেন, ‘যারা পাথর ছুঁড়বে তাদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেয়া উচিত। জাতীয় স্বার্থ সবার আগে। যারাই জাতীয় স্বার্থবিরোধী কাজ করবে, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ চাই। সেনাপ্রধান যা বলেছেন, তা জাতীয় স্বার্থেই বলেছেন। এর মধ্যে কোনো ভুল নেই। তার কথার অপব্যাখ্যা করার কোনো প্রয়োজন নেই।’
এর আগে সেনা প্রধানের মন্তব্যের তীব্র সমালোচনা করেন হুররিয়াত প্রধান সাইয়্যেদ আলী শাহ গিলানি, মীরওয়াইজ ওমর ফারুক, জেকেএলএফ প্রধান ইয়াসিন মালিক, ন্যাশনাল কনফারেন্স মুখপাত্র জুনায়েদ আজিম, নির্দলীয় বিধায়ক ইঞ্জিনিয়ার রশিদ প্রমুখ।

হুররিয়াত নেতা মীরওয়াইজ ওমর ফারুক বলেছেন, ‘হুঁশিয়ারি দেয়ার পরিবর্তে সেনাবাহিনীর প্রধান কাশ্মিরের বাস্তবতাকে গ্রহণ করলে ভালো হবে। হুমকি দিলে বরং পরিস্থিতি আরো খারাপ হতে পারে।’

তিনি কাশ্মির সমস্যা সমাধানে সংশ্লিষ্ট সকল পক্ষের সঙ্গে অর্থপূর্ণ এবং ফলপ্রসূ সংলাপের উপরে জোর দিয়েছেন। কাশ্মির সমস্যা সমাধান হলে গোটা দক্ষিণ এশিয়ায় রাজনৈতিক অনিশ্চয়তা শেষ করতে সহায়ক হবে বলেও মীরওয়াইজ ওমর ফারুক মন্তব্য করেন।